বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ সকাল সাড়ে আটটায় রাজধানীর উত্তরা থেকে রওনা দেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ইমাম হাসান। কারওয়ান বাজার পর্যন্ত আসতে তাঁর সাড়ে ১০টা বেজে যায়। তিনি জানান, শুক্র ও শনিবার বাদে প্রতিদিনই এখন এমন সময় লাগে।

একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত মো. শাহাদাত হোসেন জানান, মিরপুরের শেওড়াপাড়া থেকে কারওয়ান বাজার আসতে দেড় ঘণ্টা সময় লেগেছে তাঁর। আগারগাঁও পর্যন্ত যানজট তেমন একটা নেই। এরপর থেকে কারওয়ান বাজার পর্যন্ত পুরো রাস্তায় যানজট। তিনি জানান, প্রতিদিনই এ যানজট থাকে। সকাল আটটার দিকে বের হলে যানজট পাওয়া যায় না। সাড়ে আটটার দিকে বের হলেই দীর্ঘ সময় লেগে যায়।

এয়ারপোর্ট রোডের বঙ্গবন্ধু এভিনিউ পরিবহনের একটি বাসের চালকের সহযোগী মো. সুমন বলেন, ‘আজকে বহুত জ্যাম।’ তিনি জানান, বিশ্বরোড থেকে কারওয়ান বাজার পর্যন্ত পুরো রাস্তায় যানজট। তার মধ্যে বিশ্বরোড থেকে বনানী পর্যন্ত যানজট অনেক বেশি।

এক ট্রাফিক পুলিশ জানান, কারওয়ান বাজারে আগে যেখানে দুই লেনে গাড়ি চলত, মেট্রোরেলের কারণে সেখানে এক লেনে গাড়ি চলছে। এ এলাকায় এই কারণে যানজট বেশি।

তেজগাঁও অঞ্চলের ট্রাফিক পরিদর্শক আনোয়ার কবির প্রথম আলোকে জানান, কেবল আজকে নয়, প্রায় প্রতিদিনই ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় যানজট দেখা যাচ্ছে। ঢাকায় যে পরিমাণ সড়ক থাকা দরকার, তার চেয়ে অনেক কম রয়েছে। সড়ক না থাকলে গাড়ি যাবে কীভাবে। এ ছাড়া মেট্রোরেলসহ বৃহৎ উন্নয়নমূলক কাজ সড়কের বড় অংশ দখল করে রেখেছে। করোনার পর ঢাকা শহরে শিক্ষার্থীসহ বহু মানুষের আগমন ঘটেছে, তার প্রভাব পড়েছে। এ ছাড়া শ্রমিক, ছাত্র, রাজনৈতিক দলগুলো বিভিন্ন সময় সড়ক দখল করে রাখে। মূলত এসব কারণেই ঢাকায় এখন প্রতিদিন যানজট দেখা দিচ্ছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন