বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আবদুল্লাহ আল নাসের বলেন, ঢাকা থেকে সৌদি আরবের জেদ্দায় যাওয়া-আসার টিকিট মূলত ৬৭ হাজার টাকা। এখন ৮৫ হাজার থেকে ৯০ হাজার টাকায়ও এটি পাওয়া যাচ্ছে না। প্রতি টিকিটে ২০ হাজার টাকার বেশি হাতিয়ে নিচ্ছে বিমানের অসাধু কর্মকর্তা ও কিছু ট্রাভেল এজেন্সির মালিকের সমন্বয়ে গড়ে ওঠা সিন্ডিকেট। মাসে কোটি কোটি টাকা অতিরিক্ত মুনাফা করে যাত্রীদের পেটে লাথি মারছে তারা।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের কারণে বিমানে প্রতিদিন ৬০ থেকে ৮০টি আসন খালি যাচ্ছে। এটা জাতীয় সম্পদের বিশাল অপচয়। হজ ও ওমরাহযাত্রীর মাত্র ৩০ শতাংশ পরিবহন করে বাংলাদেশ বিমান। বাকি যাত্রী বিদেশি উড়োজাহাজ সংস্থাগুলো পরিবহন করে। এতে হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে চলে যাচ্ছে।

বক্তব্যে আরও বলা হয়, দুই বছর ওমরাহ বন্ধ থাকার পর মাত্র তিন মাস আগে চালু হয়। ধর্মপ্রাণ মুসলমানেরা ওমরাহ পালন করতে দুই বছর ধরে অপেক্ষা করছেন। কিন্তু গুটিকয়েক ট্রাভেল এজেন্সি অবৈধভাবে বিমানের মতিঝিল বিক্রয় কার্যালয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তার মাধ্যমে শত শত টিকিট বরাদ্দ নিয়েছে। এতে ঢাকা-জেদ্দা রুটে এক ভয়ংকর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

লিখিত বক্তব্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের দিয়ে বিমানের মতিঝিল কার্যালয়ে অভিযান চালাতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানানো হয়। বলা হয়, ওই কার্যালয়ের খাতা ও কম্পিউটার পরীক্ষা করা হলে এজেন্সির নামে বরাদ্দ করা টিকিটের হিসাব পাওয়া যাবে। এতে কোটি কোটি টাকা অবৈধ আয়ের তথ্যও বেরিয়ে আসবে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন