বিদ্যুৎ-সংকট মোকাবিলায় দেশজুড়ে এলাকাভিত্তিক লোডশেডিংয়ের সিদ্ধান্ত সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয় গত সোমবার। এ লোডশেডিং হতে পারে দুই ঘণ্টা পর্যন্ত। আর এখন থেকে সপ্তাহে এক দিন বন্ধ থাকবে পেট্রলপাম্প। খরচ সাশ্রয়ের জন্য ডিজেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন আপাতত স্থগিতের সিদ্ধান্তও নিয়েছে সরকার। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সোমবার সকালে বিদ্যুৎ ও জ্বালানিবিষয়ক সমন্বয় সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদবিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক–ই–ইলাহী চৌধুরী ওই সভা শেষে বলেন, খরচ কমাতে বিদ্যুৎ উৎপাদন কমানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ডিজেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর উৎপাদন আজ থেকে সাময়িক বন্ধ থাকবে। এ সিদ্ধান্ত সাময়িক। বিশ্ব পরিস্থিতির উত্তরণ হলে আগের অবস্থানে ফিরে আসা হবে।

তৌফিক–ই–ইলাহী চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের ধারণা, এক থেকে দেড় হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের ঘাটতি হবে। এতে দিনে এক থেকে দেড় ঘণ্টা এবং কোনো কোনো জায়গায় দুই ঘণ্টাও লোডশেডিং হতে পারে। কিন্তু দেশের বৃহত্তর স্বার্থে এবং পৃথিবীর এই দুর্যোগপূর্ণ সময়ে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।’

ডিপিডিসির লোডশেডিং নিয়ে সংস্থার প্রধান প্রকৌশলী মো. কামরুল আজম গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, সকাল ১০টায় লোডশেডিং শুরু হবে। এটা রাত ১০টা পর্যন্ত চলবে অঞ্চলভেদে। প্রতিদিন এক অঞ্চলে একই সময়ে লোডশেডিং করা হবে না বলে জানান কামরুল আজম।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন:

ডিপিডিসি ও ডেসকোর আওতাভুক্ত যেসব এলাকায় আজ লোডশেডিং হবে:

ডেসকোর লোডশেডিংয়ের সূচি.pdf
আজিমপুর.pdf
আদাবর.pdf
কাকরাইল_2.pdf
কাজলা_1.pdf
কামরাঙ্গীরচর.pdf
খিলগাঁও_1.pdf
জিগাতলা_3.pdf
জুরাইন.pdf
ডেমরা_2.pdf
তেজগাঁও_4.pdf
ধানমন্ডি.pdf
নারায়ণগঞ্জ (পশ্চিম).pdf
নারায়ণগঞ্জ (পূর্ব).pdf
পরিবাগ_1.pdf
পোস্তগোলা.pdf
ফতুল্লা.pdf
বংশাল.pdf
বনশ্রূী_1.pdf
বাংলাবাজার.pdf
বাসাবো.pdf
মগবাজার_2.pdf
মতিঝিল_1.pdf
মাতুয়াইল.pdf
মানিকনগর_1.pdf
মুগদাপাড়া.pdf
রমনা.pdf
রাজারবাগ_2.pdf
লালবাগ_2.pdf
শীতলক্ষ্যা_1.pdf
শেরেবাংলা নগর.pdf
শ্যামপুর_3.pdf
শ্যামলী_3.pdf
সাত মসজিদ.pdf
সিদ্ধিরগঞ্জ.pdf
স্বামীবাগ_1.pdf
রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন