সরকারি রেলওয়ে থানা (জিআরপি) ঢাকার উপপরিদর্শক (এসআই) রিয়াজ মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, ফখরুল ইসলাম সকাল সাড়ে আটটার দিকে খিলগাঁও রেলগেটের কাছে হেঁটে রেললাইন পার হওয়ার সময় খুলনা থেকে ছেড়ে আসা সুন্দরবন এক্সপ্রেসে কাটা পড়েন। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। তাঁর মরদেহ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়। তাঁর বাড়ি জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার ঝাউগড়ায়।

খবর পেয়ে ফখরুলের ছেলে রিফাত বিন ইসলাম দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে ছুটে যান। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর বাবা সকালে প্রাতর্ভ্রমণের জন্য বাসা থেকে বের হয়েছিলেন।

এর প্রায় আট ঘণ্টা পর বিকেল সোয়া চারটার দিকে কারওয়ান বাজারে অজ্ঞাতনামা এক যুবক রেললাইন ধরে হাঁটছিলেন। এ সময় কমলাপুর থেকে ছেড়ে আসা নোয়াখালীগামী উপবন এক্সপ্রেসে কাটা পড়েন তিনি। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। ঘটনা তদন্তকারী ঢাকা জিআরপি থানার এসআই রিয়াজ মাহমুদ বলেন, নিহত যুবকের গায়ে কিছু ছিল না। তাঁর পরনে জিনসের প্যান্ট ছিল।

ট্রেন-কাভার্ড ভ্যান সংঘর্ষ: ঢাকা জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস আহমেদ বিশ্বাস সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে বলেন, বিকেল পাঁচটার দিকে কমলাপুরে ইনল্যান্ড কনটেইনার ডিপোর (আইসিডি) ভেতরে সংস্থার একটি কাভার্ড ভ্যান রেললাইন পার হচ্ছিল। এ সময় নারায়ণগঞ্জগামী ট্রেনের ধাক্কায় কাভার্ড ভ্যানটি রাস্তার পাশে পড়ে যায়। এতে কাভার্ড ভ্যানটি ক্ষতিগ্রস্ত কিংবা এর চালক আহত হননি।