এসএমই উদ্যোক্তাদের পণ্য নিয়ে ১৩ জানুয়ারি পরীক্ষামূলকভাবে এই মার্কেট উদ্বোধন করা হয়। প্রতি সপ্তাহের শুক্র ও শনিবার ছুটির দিনে মার্কেটটি চালু থাকে।

দ্বিতীয় সপ্তাহে ৭০ জন উদ্যোক্তার পণ্য নিয়ে মার্কেটে ১০০টি স্টল বসানো হয়েছে। অনেক উদ্যোক্তা মার্কেটের একাধিক স্টল নিয়ে নিজেদের পণ্য সাজিয়েছেন।
উদ্যোক্তাদের স্টলগুলোতে চামড়াজাত, পাটজাত, পোশাক, সাজসজ্জা ও গৃহসজ্জার পণ্য পাওয়া যাচ্ছে। কোনো কোনো উদ্যোক্তা মার্কেটে খাদ্যপণ্য নিয়ে এসেছেন। এসবের মধ্যে নানা পিঠা, মিষ্টি, চিপস, পপকর্ন।

কিছু উদ্যোক্তা বিভিন্ন ধরনের পেস্ট্রি কেক, চকলেট, বার্গার, স্যান্ডউইচ, ফুচকা, চটপটিও তৈরি করছেন। গাছের চারা ও রাসায়নিক সারবিহীন শাকসবজির স্টল দিয়েছেন কয়েকজন উদ্যোক্তা। কেউ আবার নিজের কারখানায় তৈরি কারুশিল্প বা হস্তশিল্পের নানা পণ্য বিক্রির জন্য এনেছেন।

মার্কেটে বিভিন্ন উদ্যোক্তাদের তৈরি চামড়ার জ্যাকেট, ওয়ালেট, বেল্ট, অফিস ব্যাগ, মেয়েদের ভ্যানিটি ব্যাগ, জুতাসহ চামড়াজাত বিভিন্ন পণ্য ২০০ থেকে ৮ হাজার ৫০০ টাকায় কেনা যাচ্ছে। নারীদের চাদর, ওয়ান-পিস, থ্রি-পিস, কটির মতো বাহারি নকশার পোশাকের দাম চাওয়া হচ্ছে ৫০০ থেকে ২ হাজার টাকায়।

ঢাকা উত্তর সিটি এবং ঐক্য ফাউন্ডেশন যৌথভাবে এই মার্কেট চালু করেছে। আয়োজকদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গতকাল সবচেয়ে বেশি, এক লাখ টাকার পণ্য বিক্রি হয়েছে অর্থা নামের একটি প্রতিষ্ঠানে। এর উদ্যোক্তা নিতাই সরকার। তিনি মূলত গৃহসজ্জার পণ্য—বালিশ, বিছানার চাদর, কমফোর্টার প্রভৃতি বিক্রি করেন।
গত সপ্তাহেও এই উদ্যোক্তা সর্বোচ্চ বিক্রি করেছিলেন। ওই সপ্তাহে দুই দিনে প্রায় দুই লাখ টাকার পণ্য বিক্রি হয়েছিল বলে প্রথম আলোকে জানান স্টলটির বিক্রয় প্রতিনিধি রিয়া রহমান।

আর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বিক্রি হয়েছে উদ্যোক্তা শায়লা আখন্দের খাদ্যপণ্যের প্রতিষ্ঠান সতেজের। তাদের মোট ৫০ হাজার টাকার পণ্য বিক্রি হয়েছে। এই উদ্যোক্তার স্টলে চিড়ার মোয়া, বাদামভাজা, গুড়ের শাহি খুরমা, তিল পাপড়ি, নিমকি, মুরালী, তিল নাড়ু, নারিকেলের নাড়ু, ঝাল মোনাকা এবং বাদাম চানা বিক্রি হয়। এ ছাড়া এই উদ্যোক্তা মোড়কজাত ও বোতলজাত বিভিন্ন মসলাও বিক্রি করেন। চাল ও বেসন সরবরাহ করে থাকেন তিনি। আর তৃতীয় সর্বোচ্চ ৪২ হাজার টাকার বিক্রি হয়েছে সাজসজ্জার পণ্যের উদ্যোক্তা মমতাজ বেগমের মমস কালেকশনে।

হলিডে মার্কেটে জামদানি, হাফ সিল্ক কাপড়ের তৈরি শাড়িসহ নারীদের পোশাক বিক্রি হচ্ছে। এসব স্টলে আড়াই হাজার থেকে ১৭ হাজার টাকা মূল্যের শাড়ি আছে। শাল, ওয়ান–পিস, টু–পিসের মতো নারীদের পোশাক পাওয়া যাচ্ছে ৭৫০ থেকে ২ হাজার টাকায়।

হলিডে মার্কেটে আসা ক্রেতাদের জন্য আয়োজকেরা সাংস্কৃতিক আয়োজনের ব্যবস্থা রেখেছেন। আজ সন্ধ্যায় রবীন্দ্রসংগীতের অনুষ্ঠান হবে বলে আয়োজকেরা জানান। প্রতি সপ্তাহে দুই দিন, শুক্র ও শনিবার সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত হলিডে মার্কেট চলবে।