এ বি এম আমিন উল্লাহ নূরী বলেন, চালকদের যদি চোখের সমস্যা থাকে, তা হলে সামনের দৃশ্য ঠিকমতো দেখতে না পাওয়ার কারণে দুর্ঘটনা সংঘটিত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। তাই নিরাপদ গন্তব্যে পৌঁছাতে চালকদের সুস্থ থাকতে হবে। সেই সঙ্গে ওই স্বাস্থ্য ও চক্ষু পরীক্ষা কার্যক্রমে সবাইকে অংশগ্রহণের আহ্বান জানান তিনি।

এ সময় সায়েদাবাদ আন্তজেলা নগর বাসটার্মিনাল মালিক সমিতি, ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি আজমল উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম, সায়েদাবাদ বাসটার্মিনাল শ্রমিক কমিটি ও ২১৯৫ ইউনিয়নের সভাপতি হাজি মোহাম্মদ আলী সুবা, সাধারণ সম্পাদক সেলিম সারওয়ার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সপ্তাহব্যাপী এ কার্যক্রম গত ৩০ অক্টোবর থেকে শুরু হয়েছে। আগামীকাল পর্যন্ত চলবে এ কার্যক্রম। সায়েদাবাদ বাসটার্মিনালে আজ পর্যন্ত তিন শতাধিক চালকের বিনা মূল্যে স্বাস্থ্য ও চক্ষু পরীক্ষা করা হয়েছে।