বাজেট প্রসঙ্গে এ সময় ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘পুরো বিশ্ব বর্তমানে ইংরেজি অক্ষর তিনটি সি–এর জন্য টালমাটাল অবস্থায় রয়েছে। এই তিনটি সি হচ্ছে—কোভিড, কনফ্লিক্ট এবং ক্লাইমেট চেঞ্জ। এগুলো আমাদের দেশের জন্যও চ্যালেঞ্জ। তিনি বলেন, এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। বৈশ্বিক মহামারি করোনা, সংঘর্ষ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলা করেও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন গত ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রায় ৮০০ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করেছে।

মেয়র আরও বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে ২০২২-২৩ অর্থবছরের গৃহীত বাজেট বাস্তবায়নে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। মিতব্যয়ী হতে হবে, অপ্রয়োজনীয় ব্যয় কমাতে হবে। এ ছাড়া এ, বি ও সি ক্যাটাগরি ভিত্তিতে প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে।’

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে ব্যাটারি চালিত অবৈধ অটোরিকশা বন্ধ করার আহ্বান জানি মেয়র বলেন, ‘প্রতিটি রাস্তায় ও মহল্লায় এখন ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় সয়লাব। একেকটি রিকশায় চারটি ব্যাটারি থাকে। সারা দিন চালানোর পর এগুলোকে সারা রাত চার্জে রাখা হয়। রিকশাগুলো বিদ্যুৎ–বিধ্বংসী। এতে প্রচুর বিদ্যুতের অপচয় হয়। পাশাপাশি এসব রিকশায় প্রচুর দুর্ঘটনা ঘটছে।’ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে ব্যাটারিচালিত অবৈধ রিকশা বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন মেয়র।

এমন পদক্ষেপ নিলে রিকশাচালকদের জীবিকা নির্বাহে কষ্ট হবে—একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের এমন বক্তব্যের জবাবে মেয়র বলেন, ‘এই শহরে আগে প্রচুর পায়েচালিত রিকশা চলত, এখনো চলে। আমরা তো পায়ে চালিত রিকশা বন্ধ করে দিচ্ছি না। যারা ব্যাটারিচালিত রিকশা চালাতেন, তাঁরা এখন থেকে পায়ে চালিত রিকশা চালাবেন।’

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের লক্ষ্যে বাজেট সভা চলাকালে নগর ভবনের সভাকক্ষে ২০ ভাগ বাতি জ্বালানো ও ৫০ ভাগ শীতাতপ নিয়ন্ত্রণের যন্ত্র চালানো হয়।

এ সময় ঢাকা উত্তর সিটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম রেজা, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জোবায়দুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহ. আমিরুল ইসলাম, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমোডর এস এম শরিফ-উল ইসলামসহ ওয়ার্ড কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন