নিহত আনোয়ার হোসেনের ছোট ভাই সোহেল রানা বলেন, তাঁর ভাই বনানীতে একটি প্রতিষ্ঠানে প্রাইভেট কারের চালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। রাতে তিনি তাঁর বসকে বিমানবন্দরে নামিয়ে দিয়ে ডিউটি শেষে মোটরসাইকেলে করে বাসায় ফিরছিলেন।

বনানী ৫ নম্বর গেটের সামনে মোটরসাইকেলটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ছিটকে সড়ক বিভাজকের সঙ্গে ধাক্কা খায়। এতে গুরুতর আহত হয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তায় পড়েছিলেন আনোয়ার। পরে সেখান থেকে পথচারীরা তাঁকে উদ্ধার করেন। তাঁকে ভোর পাঁচটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেওয়ার পর পরীক্ষা–নিরীক্ষা শেষে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানায় অবগত করা হয়েছে।
মৃত আনোয়ার শেরপুর সদরের হাজিপুর দাতিয়াপাড়া গ্রামের মৃত হারেজ আলীর ছেলে। রাজধানীর বনানীর কড়াইল টিএনটি এলাকায় পরিবারের সঙ্গে ভাড়া বাসায় থাকতেন তিনি।