মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার বরঙ্গাইল বাজার কাঁচা মরিচের বড় পাইকারি ব্যবসাকেন্দ্র। বাজারটির পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক প্রথম আলোকে বলেন, খেতে এ মৌসুমের মরিচ শেষ পর্যায়ে। এ কারণে সরবরাহ কম। তিনি জানান, গতকাল বরঙ্গাইল বাজারে প্রতি কেজি মরিচ ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায় বিক্রি হয়।

মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড পৌর কাঁচাবাজারে গতকাল বিকেলে মরিচের সরবরাহ কম দেখা গেছে। কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকা কেজি।

নওগাঁর বিভিন্ন হাটবাজারে দুই সপ্তাহ আগেও কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা কেজি। গতকাল খুচরা বাজারে সেই মরিচ বিক্রি হয়েছে ২৩০ থেকে ২৪০ টাকায়। এ জন্য বৃষ্টিতে মরিচখেত নষ্ট হওয়াকে দায়ী করেছেন ব্যবসায়ীরা।

পৌর পাইকারি বাজারে গতকাল প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ মানভেদে বিক্রি হয় ১৯০ থেকে ২১০ টাকা। পৌর পাইকারি বাজারের ব্যবসায়ী জাহিদুল ইসলাম বলেন, বৃষ্টির কারণে বাজারে মরিচসহ বিভিন্ন সবজির সরবরাহ অনেক কমে গেছে।

খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় স্থানীয় হাটবাজারে জুমে উৎপাদিত কাঁচা মরিচ (স্থানীয় ভাষায় ধান্নো মরিচ) গতকাল বিক্রি হয়েছে ৩২০ থেকে ৪০০ টাকা কেজি। বিক্রেতারা জানান, জুমের নতুন মরিচ বাজারে আসতে আরও এক মাস বাকি আছে। এখন সরবরাহ কম। এ কারণে দাম বেড়েছে।

ঢাকার কারওয়ান বাজারে গতকাল কথা হয় ক্রেতা খোরশেদ আলমের সঙ্গে। তিনি জানান, গত মঙ্গলবারও কাঁচা মরিচের দাম ছিল ১৮০ টাকা কেজি। ২৪ ঘণ্টায় এক লাফে দাম বেড়েছে ৬০ টাকা। তিনি বলেন, ‘জিনিসপত্রের দাম যেভাবে বাড়তেছে, মানুষ খ্যায়া বাঁচবে ক্যামনে।’

[প্রতিবেদনটি তৈরিতে তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন প্রতিনিধি, মানিকগঞ্জ, নওগাঁদীঘিনালা, খাগড়াছড়ি]

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন