ডিএমপি কমিশনার বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করলে পুলিশ তাতে বাধা দেবে না। তবে রাজনীতির নামে আগুন–সন্ত্রাস করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্পন্ন করতে ডিএমপির সকল পুলিশ ইউনিটকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার নির্দেশ দেন তিনি।

শফিকুল ইসলাম বলেন, পূজামণ্ডপে যাতে কোনো ধরনের নাশকতা না ঘটে সে জন্য প্রতিমা তৈরির স্থান ও সব পূজা মণ্ডপে পর্যাপ্ত ক্লোজড সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা বসানোর পাশাপাশি আনসার সদস্য মোতায়েন করতে হবে। পুলিশকেও পূজা চলাকালে মণ্ডপে অবস্থান করতে হবে। গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশের নিরাপত্তা চৌকি বসিয়ে তল্লাশির পাশাপাশি টহল জোরদারের নির্দেশ দেন তিনি।

অপরাধ পর্যালোচনা সভার শুরুতেই আগস্ট মাসের খাতওয়ারি অপরাধচিত্র পর্যালোচনা করা হয়। এ সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সভায় ঢাকা মহানগরের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও জননিরাপত্তায় ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাদের পুরস্কার দেন ডিএমপি কমিশনার।

আগস্ট মাসে ডিএমপির আটটি অপরাধ বিভাগের মধ্যে যৌথভাবে প্রথম হয়েছে তেজগাঁও ও মিরপুর বিভাগ। গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তামিল করে শ্রেষ্ঠ হয়েছে উত্তরা বিভাগ। সহকারী পুলিশ কমিশনারদের মধ্যে প্রথম হয়েছেন মোহাম্মদপুর অঞ্চলের সহকারী কমিশনার মুজিব আহম্মদ পাটওয়ারী। পুলিশ পরিদর্শকদের (তদন্ত) মধ্যে প্রথম হয়েছেন মুগদা থানার কামরুল হোসাইন এবং পুলিশ পরিদর্শকদের (অপারেশনস) মধ্যে প্রথম হয়েছেন মোহাম্মদপুর থানার তোফাজ্জল হোসেন।

ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (অপরাধ) বিপ্লব বিজয় তালুকদারের সঞ্চালনায় অপরাধ পর্যালোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) এ কে এম হাফিজ আক্তার, অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মুনিবুর রহমান, অতিরিক্ত কমিশনার (সিটিটিসি) মো. আসাদুজ্জামান, অতিরিক্ত কমিশনার (লজিস্টিকস, ফিন্যান্স অ্যান্ড প্রকিউরমেন্ট) সৈয়দ নুরুল ইসলাম প্রমুখ।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন