ছিনতাইকারীর পেছনে ছুটছিলেন ওই নারী। ছিনতাইকারী, ছিনতাইকারী—চিৎকার শুনে ওই ছাত্রী দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকারী এই ছিনতাইকারীকে জাপটে ধরেন। নিজের মুঠোফোন ছিনিয়ে নেওয়া ছিনতাইকারীকে ধরতে না পারলেও আরেক ছিনতাইকারীকে ধরে ক্ষুব্ধ ওই শিক্ষার্থী ছিনতাইকারীকে ধরে বেধড়ক মারধরও করেন।

ততক্ষণে ঘটনাস্থলে জড়ো হন অনেক মানুষ। অনেকে ছিনতাইকারীকে মারধরের ঘটনা ভিডিও করেন। একটি ভিডিওতে দেখা যায়, ওই ছাত্রী ছিনতাইকারীর পকেট তল্লাশি করে একটি মুঠোফোন পান। তবে সেটি তাঁর নয়। পরে কৌশলে ছিনতাইকারীকে দিয়ে ফোন করে তাঁর সহযোগীকে ডেকে আনেন। ধরে তাঁকেও পেটানো হয়। তবে তাঁর কাছেও ছিল না ছাত্রীর মুঠোফোন। এরপর ছিনতাইকারী তুষার ও তাঁর সহযোগী রাসেলকে তেজগাঁও থানা-পুলিশের কাছে তুলে দেওয়া হয়। এ সময় পুলিশ ওই ছাত্রী ও তাঁর বন্ধুকেও থানায় নিয়ে যায়। তবে তাঁরা কোনো অভিযোগ না করে থানা থেকে ফিরে আসেন।

তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসান প্রথম আলোকে বলেন, ‘ছিনতাইয়ের শিকার ওই শিক্ষার্থীকে বাদী হয়ে মামলা করতে বলেছিলাম। কিন্তু রাজি হননি। পরে পুলিশ বাদী হয়ে দুই ছিনতাইকারীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে। তাঁদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’ শিক্ষার্থীর ছিনতাই হওয়া মুঠোফোন উদ্ধার হয়েছে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ছিনতাই হওয়া মুঠোফোন উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

পুলিশ জানায়, চট্টগ্রামের মেয়ে ওই শিক্ষার্থী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের মাস্টার্স শেষ বর্ষে পড়েন। তিনি সদরঘাট এলাকার একটি ছাত্রীনিবাসে থাকেন। মুঠোফোন ছিনতাই হওয়ায় পুলিশের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। ছিনতাইকারীকে ধরে মারধর করার ঘটনার একটি ভিডিও ফুটেজে তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘দুজন ছিনতাইকারীকে ধরাইয়া দিলাম। এরপরও পুলিশ যদি আমার মোবাইল উদ্ধার করে দিতে না পারে, এর চেয়ে বড় ব্যর্থতা আর কিছু নাই।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন