উপাচার্য ইমদাদুল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘ক্যাম্পাসে একটি পূর্ণাঙ্গ থানা স্থাপনের ঘোষণা দিয়েছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তবে এখনো একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হয়নি। তাই প্রাথমিকভাবে একটি পুলিশ ফাঁড়ি করে সামগ্রিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের নির্দেশনা দিয়েছেন মন্ত্রী। পুরোদমে দ্বিতীয় ক্যাম্পাস ব্যবহার শুরু হলে আমরা নিজেরাও নিরাপত্তাকর্মী বাড়াব।’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যত দ্রুত সম্ভব সেখানে পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন করার নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান উপাচার্য।

কেরানীগঞ্জের বাঘৈর গ্রামে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় ক্যাম্পাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য আবাসিক হল ও একাডেমিক ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। কার্যক্রম শুরু না হলেও সেখানে থাকা খেলার মাঠে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়া কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাও সেখানে ঘুরতে যাচ্ছেন।

এদিকে আজ ঢাকা মহানগর পুলিশের লালবাগ ট্রাফিক বিভাগের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এক যৌথ সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের সড়কে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সড়কের যানবাহনের গতি নিয়ন্ত্রণে গতিরোধক ও পদচারী–সেতু নির্মাণ করা হবে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন