বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জিম্বাবুয়েতে ওয়ানডে বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে খেলতে গিয়েছিল বাংলাদেশ নারী দল। কিন্তু করোনার নতুন ধরন অমিক্রনের কারণে সেটি মাঝপথেই স্থগিত হয়ে যায়। দলটি ১ ডিসেম্বর দেশে ফেরে। ৬ ডিসেম্বর জানা যায়, দুই ক্রিকেটার করোনায় আক্রান্ত। আর ১১ ডিসেম্বর জানা যায়, তাঁরা অমিক্রন ধরনেই আক্রান্ত হয়েছেন। এরপর ১৪ ডিসেম্বর দলের আরেক সদস্যের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর জানা যায়। তিনি অবশ্য অমিক্রনে নয় ডেলটা ধরনে আক্রান্ত হন। তিনজনকেই রাজধানীর মুগদা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আজ ব্রিফিংয়ে অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের নারী ক্রিকেটাররা যাঁরা অমিক্রনে আক্রান্ত হয়েছিলেন, তাঁরা একেবারেই সুস্থ। তাঁদের কোয়ারেন্টিন শেষ পর্যায়ে। সব পরীক্ষা–নিরীক্ষার ফলাফল পেলেই তাঁদের দ্রুত নিজ নিজ বাসগৃহে ফিরে যাওয়ার অনুমতি দিতে পারি।’

দেশে করোনার সংক্রমণের সাম্প্রতিক গতি–প্রকৃতি তুলে ধরে অধ্যাপক নাজমুল বলেন, ‘সংক্রমণের নিম্নহারই আমরা দেখছি। গত এক সপ্তাহে ১ হাজার ৮৭৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন, যা আগের সাত দিনের তুলনায় ১২৬ জন বেশি। গত সপ্তাহে তার আগের সপ্তাহের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা দুটি কম। অর্থাৎ পুরো সপ্তাহ ছিল স্বস্তির। কিন্তু এই কম সংখ্যায় আত্মতুষ্টির সুযোগ নেই।

এর কারণ হিসেবে অধ্যাপক নাজমুল বলেন, ‘বিদ্যুৎগতিতে ইউরোপে অমিক্রন ছড়াচ্ছে। অমিক্রনের যে বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে সেটি হলো, এটি দ্রতুগতিতে ছড়ায়। আমাদের সবার নজর অমিক্রনের দিকে।’

তবে নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘যদি আমাদের প্রস্ততি ভালো থাকে, তবে অমিক্রন মোকাবিলা করা সম্ভব।’

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে মোট ২৮ জন নতুন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছেন বলে ব্রিফিংয়ে জানানো হয় এর মধ্যে ২১ জনই ঢাকায়। বাকি সাতজন দেশের অন্য জেলার।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন