বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ যে দুজনের মৃত্যু হয়েছে, তাঁরা দুজনই নারী। তাঁদের একজন ঢাকা বিভাগের, আরেকজন চট্টগ্রামের। বাকি ছয় বিভাগে কারও মৃত্যু হয়নি। গত এক সপ্তাহে (১৫ থেকে ২১ নভেম্বর) যে ৩১ জনের মৃত্যৃ হয়েছে, তাঁদের মধ্যে পুরুষ ২০ জন, নারী ১১ জন। তাঁদের মধ্যে ১৬ জনের ‘কোমরবিডিটি’ ছিল।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশে মোট ১৮ হাজার ৬১৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ১ দশমিক ৪২। আগের দিন এ হার ছিল ১ দশমিক ১৬।

গত বছরের মার্চে দেশে প্রথম করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। এর পর থেকে এখন পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১৫ লাখ ৭৪ হাজার ৩৫২। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ২৭ হাজার ৯৫৫ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৩৮ হাজার ৫৩৭ জন। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় ৩৩৯ জন সুস্থ হয়েছেন।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে প্রথম করোনা সংক্রমণ দেখা দেয়। কয়েক মাসের মধ্যে এ ভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। প্রথম মৃত্যুর খবর জানানো হয় একই বছরের ১৮ মার্চ।

এরপর বিভিন্ন সময় করোনা সংক্রমণ কমবেশি হয়েছে। তবে চলতি বছরের মে মাসের শেষের দিকে দেশে করোনার ডেলটা ধরনের দাপটে পরিস্থিতি খারাপ হতে থাকে। গত আগস্টের প্রথম দিকে করোনার গণটিকা দেওয়া শুরু হয়। এরপর সংক্রমণ ও মৃত্যু উভয়ই কমতে শুরু করে।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন