বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চমেক হাসপাতাল কেন্দ্রে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে টিকার জন্য লাইন ধরে সাধারণ মানুষ। বেলা ১১টায় নারী-পুরুষের লাইন দীর্ঘ হয়ে যায়। এখানে ৮টি কক্ষে টিকা দেওয়া হয়। আগে যাঁরা নিবন্ধন করে টিকা পাননি, তাঁদের পাশাপাশি নতুন করে নিবন্ধনকারীরাও টিকা নিতে ভিড় করেন। মমতাজ বেগম নামের এক নারী বলেন, ‘দেড় ঘণ্টা ধরে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। খুদেবার্তা আসার পর টিকা নিতে এসেছি।’

তবে অনেকে খুদেবার্তা না আসার পরও টিকা নিতে যান। তাঁদের ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়। জানতে চাইলে চমেক হাসপাতালের সহকারী পরিচালক মো. সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা ১ হাজার ২০০ মানুষকে আজ টিকা নেওয়ার জন্য খুদেবার্তা পাঠিয়েছেন। আটটি কেন্দ্রে টিকা দেওয়ার কাজ চলছে। এরপরও কেউ কেউ খুদেবার্তা ছাড়া বা অন্য কেন্দ্রে চলে এসেছেন। তাঁদের টিকা দেওয়া হয়নি। শুধু এই কেন্দ্রেই আজ ১ হাজার ২৭৯ জনকে মর্ডানার টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে।

নগরের জেনারেল হাসপাতাল এবং সিটি করপোরেশনের জেনারেল হাসপাতালেও টিকার জন্য দীর্ঘ লাইন ছিল। তবে সেখানে চমেক কেন্দ্রের মতো ভিড় দেখা যায়নি। জেনারেল হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মো. আবদুর রব বলেন, ছয়টি কক্ষে টিকাদান চলছে। যাঁরা খুদেবার্তা নিয়ে আসছেন, সবাই টিকা পেয়েছেন।
আজ নগরের ১১টি কেন্দ্রে টিকা কার্যক্রম চলে। নগরে মর্ডানার এবং উপজেলাগুলোতে দেওয়া হয় সিনোফার্মের টিকা।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন