default-image

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণের রাশ টানতে বিশ্বের বিশাল জনগোষ্ঠীর মধ্যে প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি জরুরি। আর এর জন্য সবচেয়ে নিরাপদ উপায় হলো টিকা গ্রহণ। টিকা নেওয়ার পর স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় দেহে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়, যা করোনা ঠেকাতে কাজ করে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন দেশে টিকাদান শুরু হয়েছে।

কাদানের তোড়জোড় চলছে অনেক দেশে। এখন বড় চ্যালেঞ্জ হলো বিশ্বের সব মানুষের কাছে টিকা পৌঁছে দেওয়া। এদিকে নতুন নতুন টিকাও আসছে। বেশ কিছু টিকা আছে ট্রায়াল পর্যায়ে। শনিবার চীন তাদের দ্বিতীয় টিকার অনুমোদন দিয়েছে।
টিকার সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ও সংস্থার বরাত দিয়ে উল্লেখযোগ্য কিছু তথ্য তুলে ধরা হলো:

এগিয়ে থাকা পাঁচ টিকা

টিকা তৈরিতে এগিয়ে থাকা তিনটি বড় প্রতিষ্ঠান হচ্ছে ফাইজার-বায়োএনটেক, মডার্না ও অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা। এর মধ্যে ফাইজার ও মডার্না আরএনএ প্রযুক্তির টিকা তৈরি করেছে। এ প্রযুক্তিতে এতে দ্রুত টিকা তৈরি করা সম্ভব। এতে ভাইরাসের জেনেটিক কোডের ক্ষুদ্র একটি অংশ দেহে প্রবেশ করানো হয়। এতে করোনাভাইরাসের একটি অংশ তৈরি করতে শুরু করে এবং শরীর এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। এ প্রযুক্তির টিকা যুক্তরাজ্য, ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রে অনুমোদন পেয়েছে। অন্যদিকে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের টিকাটি আলাদা। এতে নিরীহ ভাইরাস ব্যবহার করে শরীরে জেনেটিক উপাদান প্রবেশ করানো হয়। এ টিকাটি যুক্তরাজ্য ও ইউরোপে অনুমোদন পেয়েছে।

অক্সফোর্ডের টিকাটি অন্য দুটি টিকার চেয়ে প্রয়োগ ও সংরক্ষণ করা সহজ। সব কটি টিকার দুটি ডোজ করে দিতে হয়। তবে যুক্তরাজ্য যতটা সম্ভব বেশি মানুষকে প্রথম ডোজ দেওয়ার চেষ্টা করছে এবং দ্বিতীয় ডোজ দিতে দেরি করছে।

বিজ্ঞাপন

নতুন আরও দুটি টিকা বাজারে আসার পথে। একটি নোভাভ্যাক্স আর অপরটি হলো জেনসেন। যুক্তরাজ্যে বৃহৎ পরিসরে নোভাভ্যাক্সের টিকার পরীক্ষা চালানো হয়। এই পরীক্ষার ফলাফলে দেখা গেছে, করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে নোভাভ্যাক্সের টিকা ৮৯ দশমিক ৩ শতাংশ কার্যকর। নোভাভ্যাক্সের পক্ষ থেকে এই তথ্য জানানো হয়।

আর জনসন অ্যান্ড জনসনের তৈরি টিকা মাঝারি ও গুরুতর পর্যায়ের কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ৬৬ শতাংশ কার্যকর বলে দাবি করেছে। বিশ্বব্যাপী তৃতীয় ধাপের পরীক্ষামূলক প্রয়োগে এই ফলাফল পাওয়া গেছে। তবে জনসন জানিয়েছে, শুধু গুরুতর পর্যায়ের কোভিড-১৯ প্রতিরোধে টিকাটি ৮৫ শতাংশ কার্যকর। এই টিকা তৈরিতেও অক্সফোর্ডের প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। তবে জনসনের টিকা এক ডোজের।

default-image

অন্যান্য টিকা

ইউরোপীয় দেশ ও যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও বিভিন্ন দেশে উল্লেখ করার মতো টিকা তৈরি হয়েছে। এরই মধ্যে শনিবার দ্বিতীয় টিকার অনুমোদন দিল চীন। দেশীয় প্রতিষ্ঠান সিনোভ্যাক বায়োটেকের তৈরি ‘করোনাভ্যাক’ এ অনুমতি পেয়েছে। সিনোভ্যাক জানিয়েছে, তাদের টিকা জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োগের জন্য ইতিমধ্যে ইন্দোনেশিয়া, তুরস্ক, ব্রাজিল, চিলি, কলম্বিয়া, উরুগুয়ে ও লাওসে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। গত ডিসেম্বরে চীন প্রথম টিকা হিসেবে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান সিনোফার্মের তৈরি টিকা করোনা রোগীদের জন্য ব্যবহারের অনুমতি দেয়। এশিয়ার বিভিন্ন দেশ ও দক্ষিণ আমেরিকার অনেকগুলো দেশের সঙ্গে চীনের চুক্তিও হয়েছে। এই মধ্যে দেশটির ১০ লাখ মানুষকে সিনোফার্ম টিকা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে ২ ফেব্রুয়ারি ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে রাশিয়ার তৈরি টিকা স্পুতনিক-ভি ৯১ দশমিক ৬ শতাংশ কার্যকর বলে দাবি করা হয়েছে। করোনার উপসর্গ থাকা ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের ক্ষেত্রে এই কার্যকারিতা ৯১ দশমিক ৮ শতাংশ। এই টিকার তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষার অন্তর্বর্তীকালীন তথ্য বিশ্লেষণের ভিত্তিতে এমন দাবি করা হয়। এর আগে টিকাটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগের দ্বিতীয় অন্তর্বর্তীকালীন বিশ্লেষণে দাবি করা হয়েছিল এটা ৯৫ শতাংশ কার্যকর। চূড়ান্ত পরীক্ষার আগেই রাশিয়াসহ কয়েকটি দেশে করোনা ঠেকাতে স্পুতনিক-ভি মানবদেহে প্রয়োগ শুরু হয়েছে।

টিকা দেওয়ায় এগিয়ে কোন দেশ

করোনার তথ্য নিয়ে গবেষণাকারী প্রতিষ্ঠান আওয়ার ওয়ার্ল্ড ইন ডাটার এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে জনসংখ্যা অনুপাতে শতাংশের হারে সবার চেয়ে এগিয়ে আছে ইসরায়েল। দেশটিতে ইতিমধ্যে তার ৬২ দশমিক ১ শতাংশ জনগণকে টিকা দিয়েছে। যুক্তরাজ্যে এই হার ১৬ দশমিক ৯, যুক্তরাষ্ট্রে ১১, স্পেনে ৪ দশমিক ৩, ইতালিতে ৪ , জার্মানিতে ৩ দশমিক ৭, বেলজিয়ামে ৩ দশমিক ৫, ফ্রান্সে ২ দশমিক ৯, কানাডায় ২ দশমিক ৮, নেদারল্যন্ডস ২ দশমিক ১, ব্রাজিল ১ দশমিক ৪, ভারতে দশমিক ৪ শতাংশ মানুষ টিকা পেয়েছে।

ট্রায়াল পর্যায়ে কত টিকা

প্রাথমিক পর্যায়ে পরীক্ষার অপেক্ষায় আছে ১৭১টি টিকা। টিকার নিরাপত্তা নিয়ে স্বল্প পরিসরে পরীক্ষার পর্যায়ে আছে ১৯টি, বিস্তৃত পরিসরে পরীক্ষার পর্যায়ে আছে ২৫টি এবং ব্যাপক আকারে পরীক্ষার পর কার্যকারিতা মূল্যায়নের পর্যায়ে রয়েছে ২১টি টিকা। ব্যাপক আকারে পরীক্ষার পর টিকার মধ্যে এরই মধ্যে কয়েকটিকে বিভিন্ন দেশ ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এখন পর্যন্ত একমাত্র ফাইজারের টিকার অনুমোদন দিয়েছে।

করোনার নতুন ধরন নিয়ে চিন্তা

করোনার নতুন ধরনগুলো বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ছে। এরই মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার নতুন ধরনের বিরুদ্ধে জনসন ও নোভাভ্যাক্সের ব্যাপক কার্যকারিতা দেখা গেছে। ফলাফলে দেখা গেছে, অন্য যেকোনো টিকার তুলনায় এ দুটি বেশ ফলপ্রসূ। তবে ভবিষ্যতে টিকার আরও পরিবর্তন আনতে হতে পারে বলে মনে করছে প্রতিষ্ঠান দুটি।

বিজ্ঞাপন
করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন