default-image

বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক উদ্ভাবিত করোনার টিকা বঙ্গভ্যাক্সের পরীক্ষামূলক প্রয়োগের নীতিগত অনুমোদনে নথিপত্র জমা দিয়েছেন গবেষকেরা। আজ রোববার দুপুরে বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিলের (বিএমআরসি) কর্মকর্তারা এই রিসার্চ প্রটোকল জমা নেন।

রিসার্চ প্রটোকল জমা দেওয়ার সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের হেপাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক মামুন আল মাহতাব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ফার্মেসি বিভাগের অধ্যাপক সিতেশ চন্দ্র বাছাড়, রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরিন উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া গ্লোব বায়োটেকের কয়েকজন গবেষক ও কর্মকর্তাও উপস্থিত ছিলেন।

৬ জানুয়ারি ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য প্রয়োজনীয় টিকা উৎপাদন করার অনুমোদন পায় গ্লোব বায়োটেক। গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগের প্রধান ডা. আসিফ মাহমুদ ওই দিন এ তথ্য জানিয়েছিলেন।

এর আগে বঙ্গভ্যাক্সের পরীক্ষামূলক প্রয়োগের নীতিগত অনুমতি চেয়ে বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিলে নথিপত্র জমা দেওয়ার প্রস্তুতি নেন গবেষকেরা। সিআরও লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান এই গবেষণা করবে।

বিজ্ঞাপন

নথিপত্র জমা দেওয়ার আগে ওই পরীক্ষার প্রধান গবেষক অধ্যাপক মামুন আল মাহতাব প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ‘রোববার বিএমআরসিতে গবেষণা প্রটোকল জমা দিয়ে প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালের অনুমোদন চাওয়া হবে।’

৬ জানুয়ারি ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য প্রয়োজনীয় টিকা উৎপাদন করার অনুমোদন পায় গ্লোব বায়োটেক। গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগের প্রধান ডা. আসিফ মাহমুদ ওই দিন এ তথ্য জানিয়েছিলেন।

গ্লোব বায়োটেকের টিকার পরীক্ষায় আইইডিসিআরের গবেষক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের একজন শিক্ষক যুক্ত রয়েছেন।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন