বিজ্ঞাপন

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে এ বছরের বঙ্গবন্ধু জাতীয় যুব পুরস্কার বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

২১ জন স্বনির্ভর যুবক এবং ৫টি সফল যুব সংগঠনকে যুবকদের জন্য কর্মসংস্থানে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ এ পুরস্কার দেওয়া হয়।

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ আখতার হোসেন অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ দেন। পুরস্কার বিজয়ীদের পক্ষে সাইফুর রহমান ও সামিয়া রহমান অনুষ্ঠানে অনুভূতি ব্যক্ত করেন।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় যুব দিবস-২০২০ উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট এবং খামও অবমুক্ত করা হয়। ‘মুজিব বর্ষের আহ্বান, যুব কর্মসংস্থান’ প্রতিপাদ্য নিয়ে সারা দেশে দিবসটি উদযাপিত হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব পুনরায় ব্যাপকভাবে দেখা দেওয়ায় ইতিমধ্যে ইংল্যান্ডসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে লকডাউন করা হয়েছে। কাজেই আমাদের সবাইকে একটু সুরক্ষিত থাকতে হবে।’ তিনি বলেন, যেকোনো কাজে সবাই মাস্ক ব্যবহার করবেন। যেকোনো জনসমাগম বা মার্কেটে যাবেন বা কারও সঙ্গে মিশবেন, তখন অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করে নিজেকে এবং অপরকেও সুরক্ষিত করবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সবাই নিয়ম মেনে চলবেন। কারণ, যেভাবে এই করোনাভাইরাস থেকে মানুষকে রক্ষা করেছি, সেভাবেই যেন রক্ষা করতে পারি। সবাই এটাকে একটা দায়িত্ব হিসেবে নেবেন, সেটাই আমরা চাই।’

করোনাভাইরাস মোকাবিলার জন্য তাঁর সরকার ঘোষিত ১ লাখ ১২ হাজার ৬৩৩ কোটি টাকার ২১টি প্রণোদনা প্যাকেজের উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এটা দিয়েছি যেন আমাদের অর্থনীতির গতিটা অব্যাহত থাকে।’

তাঁর সরকারের যথাযথ পদক্ষেপে দেশের অর্থনীতি এখনো সচল রয়েছে, যেটা অনেক উন্নত দেশও এখন করতে পারছে না, উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী এর মধ্যেই পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্প, কর্ণফুলী নদীর তলদেশের টানেলসহ বিভিন্ন মেগা প্রকল্প, রাস্তাঘাটসহ অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান। যেগুলো সম্পন্ন হলে আরও বহু মানুষের কর্মসংস্থান হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

অতীতে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে তাঁর সরকার ঘোষিত ২১ দফা নির্দেশনা প্রদানেরও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

যুবসমাজের আত্মকর্মসংস্থান শুরু বা স্টার্টআপের জন্য মূলধন হিসেবে তাঁর সরকার বাজেটে বরাদ্দ রেখেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আইসিটি ক্ষেত্রটা এখন সবথেকে আধুনিক এবং সে জন্য যুবকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা এবং কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা সরকার নিয়েছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যুবসমাজকে বলছি, নিজেই নিজের কর্মসংস্থান করতে হবে। আমিই বস হব। আমিই কাজ দেব। নিজের মধ্যে যে শক্তিটা আছে, সেটা কাজে লাগাতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ফ্রিল্যান্সাররা যে কাজ করছেন, তাঁরা যেন একটা সার্টিফিকেট বা স্বীকৃতি পান। কেননা তাঁরাও অর্থ উপার্জন করছেন, সেটাও একটা কাজ।’ তিনি বলেন, ‘ফ্রিল্যান্সারদের একটা অসুবিধা আছে আমি জানি। তাঁদের রেজিস্ট্রেশন করতে হচ্ছে না, সার্টিফিকেটও নেই, স্বীকৃতিও নেই। সেটা নিয়েও আমরা সজীব ওয়াজেদ জয়ের সাথে (তাঁর ছেলে এবং প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা) আলোচনা করে, আমাদের আইসিটি মিনিস্ট্রি, যুব মন্ত্রণালয় এবং সকলে মিলে উদ্যোগ নিচ্ছি, যারা এই ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ করবে তারা যেন একটা স্বীকৃতি পায়, বা সনদ পায়।’ তিনি বলেন, ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে আমাদের যুবসমাজ ঘরে বসেই অনেক টাকা উপার্জন করতে পারছে। তবে এটারও একটা স্বীকৃতির দরকার রয়েছে।

বিয়ের বাজারে মেয়ের বাবারা ফ্রিল্যান্সারদের মূল্যায়ন করে না, এমনকি ভালো স্কুল অভিভাবকদের আয়ের নিশ্চয়তা না পেয়ে তাদের সন্তানদের ভর্তি পর্যন্ত করতে চায় না—এমন অভিযোগও তাঁর কাছে এসেছে বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন। এ সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, ‘কোনো কাজে গেলে ফ্রিল্যান্সাররা তাদের সোর্স অব ইনকাম দেখাতে পারে না, সে জন্য আমরা এ বিষয়ে স্বীকৃতির চিন্তাভাবনা করছি, যা একটা সুযোগ সৃষ্টি করে দেব। যাতে তারা কাজ করতে পারে।’

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন