বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জাতীয় পরামর্শক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লাহর পাঠানো ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সারা দেশে কোভিড–১৯–এর সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে। এমতাবস্থায় বিধিনিষেধ শিথিল করার সরকারি সিদ্ধান্তে কমিটি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

বিধিনিষেধ চালিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি এর অংশ হিসেবে কোরবানির পশুর হাট বন্ধ রাখার প্রস্তাব করেছে পরামর্শক কমিটি। ডিজিটাল হাট পরিচালনার পরামর্শ দিয়েছে তারা। আর বিধিনিষেধ শিথিল করে সীমিত পরিসরে হাট পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিলে কয়েকটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

মাসখানেকের বেশি সময় ধরে দেশে করোনার ডেলটা ভ্যারিয়েন্টের দাপট চলছে। এক বছরের বেশি সময় ধরে চলমান মহামারিতে এখনই সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত ও মৃত্যু হচ্ছে। দৈনিক করোনা শনাক্ত ও মৃত্যুর দিক দিয়ে বিশ্বে অষ্টম অবস্থানে চলে এসেছে বাংলাদেশ।

সংক্রমণ বাড়তে থাকায় ১ জুলাই থেকে সারা দেশে কঠোর বিধিনিষেধ চলছে। এ সময় সব ধরনের সরকারি–বেসরকারি অফিস, গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। বুধবার মধ্যরাতে এই বিধিনিষেধ শেষ হচ্ছে।

চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ বৃদ্ধির পরামর্শ আগেই দিয়েছিল করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে গঠিত এই জাতীয় পরামর্শক কমিটি। তবে ২১ জুলাই ঈদুল আজহা উপলক্ষে আট দিনের জন্য বিধিনিষেধ শিথিল করেছে সরকার। এখন কিছু শর্ত দিয়ে গণপরিবহন চালু করা হচ্ছে, খোলা হচ্ছে শপিং মল, মার্কেট ও দোকানপাট। সারা দেশে কোরবানির পশুর হাট চালু হচ্ছে। তিনটি ঈদের পর এবার মসজিদের পাশাপাশি ঈদগাহ ও খোলা জায়গায় ঈদের নামাজের জামাত আয়োজনের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে।

ঈদুল আজহা ও কোরবানির পশুর হাটের বিষয়ে কয়েকটি সুপারিশ করেছে জাতীয় পরামর্শক কমিটি। শহর এলাকায় কোরবানির পশুর হাট বসার অনুমতি না দেওয়ার সুপারিশ করেছে তারা।

কমিটি বলেছে, শারীরিক দূরত্ব ও অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে উন্মুক্ত জায়গায় কোরবানির পশুর হাট বসানোর অনুমতি দেওয়া যেতে পারে। তবে সেটা হতে হবে শহর এলাকার বাইরে। হাটে প্রবেশ ও বের হওয়ার জন্য আলাদা পথ রাখতে হবে।

জনসাধারণকে অনলাইনে কোরবানির পশু কিনতে উৎসাহিত করেছে জাতীয় পরামর্শক কমিটি। এ ছাড়া ৫০ বছর বা তার চেয়ে বেশি বয়সের কাউকে কিংবা আগে থেকে কোনো রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের কোরবানির পশুর হাটে না যেতে পরামর্শ দিয়েছে কমিটি।

ঈদের ছুটিতে গ্রামের বাড়িতে না গিয়ে, যে যেখানে আছেন, সেখানেই অবস্থান করার বিষয়ে উৎসাহিত করার পরামর্শ দিয়েছে কমিটি। এ ছাড়া বাড়ির আঙিনায় কোরবানি না করে সরকার–নির্ধারিত স্থানে কোরবানির পশু জবাই করার আহ্বান জানিয়েছে কমিটি।

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণেও কয়েকটি পরামর্শ দিয়েছে জাতীয় পরামর্শক কমিটি। করোনা পরীক্ষা বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তার কথা বলেছে তারা। কিটের দাম কমায় বেসরকারি পর্যায়ে পরীক্ষার ফি ১০০০ থেকে ১৫০০ টাকার মধ্যে নির্ধারণের সুপারিশ করা হয়েছে।

বর্তমানের সংকট সামাল দিতে ফিল্ড হাসপাতাল তৈরির উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে তা দ্রুত বাস্তবায়নের অনুরোধ করা হয়েছে। এ ছাড়া টিকার বয়সসীমা কমিয়ে ১৮ বছরে নামিয়ে আনা, এনআইডিবিহীন লোকজনকে টিকার আওতায় আনা, রেজিস্ট্রেশন সহজ করতে ব্যবস্থা নিতে বলেছে জাতীয় পরামর্শক কমিটি।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন