বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জনসন অ্যান্ড জনসনের গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগের বৈশ্বিক প্রধান মাথাই মাম্মেন বলেন, ‘যাঁরা আমাদের করোনার টিকার এক ডোজ নিয়েছেন, তাঁদের বুস্টার ডোজ দিলে শরীরে সুরক্ষার মাত্রা ৯৪ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। পরীক্ষা চালিয়ে এমনটাই দেখা গেছে।’

জনসন অ্যান্ড জনসন বলছে, তাদের টিকার প্রথম ডোজ নেওয়ার ছয় মাস পর বুস্টার ডোজ নিলে সুরক্ষাব্যবস্থা শক্তিশালী হয়। পরীক্ষায় দেখা গেছে, বুস্টার ডোজ নেওয়ার মাত্র ১ সপ্তাহ পর শরীরে অ্যান্টিবডির পরিমাণ ৯ গুণ বৃদ্ধি পায়। ৪ সপ্তাহ পর অ্যান্টিবডির মাত্রা বেড়ে দাঁড়ায় ১২ গুণ। সব বয়সী ব্যক্তির ক্ষেত্রে এই হার একই বলে দেখা গেছে।

গতকাল এফডিএ জানায়, মডার্নার টিকার বুস্টার ডোজ অনুমোদনের বিষয়ে সংস্থার উপদেষ্টা কমিটির সদস্যরা ১৪ অক্টোবর আলোচনায় বসবেন। এর পরদিন ১৫ অক্টোবর জনসন অ্যান্ড জনসনের বুস্টার ডোজ নিয়ে তাঁরা আলোচনা করবেন।
গত আগস্টে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন ফাইজার ও মডার্নার করোনা টিকার বুস্টার ডোজ প্রয়োগের পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করে।

এফডিএ ইতিমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে ৬৫ বছরের বেশি বয়সী ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে ফাইজারের করোনার টিকার বুস্টার ডোজ ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে। একই সঙ্গে দেশটিতে গুরুতর রোগের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি ও করোনায় সংক্রমিত হওয়ার উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিযুক্ত ব্যক্তিদের ক্ষেত্রেও এই টিকার বুস্টার ডোজ ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। গত মাসে প্রেসিডেন্ট বাইডেন ফাইজারের টিকার বুস্টার ডোজ নেন।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন