বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
আমাদের অনেক শিক্ষক ও অভিভাবকের মধ্যে দেড় বছরের পড়াশোনা দেড় মাসে করিয়ে ফেলার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। এতে হিতে বিপরীত হবে।
হেলালুদ্দীন আহমদ, সহযোগী অধ্যাপক, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট

আগামীকাল রোববার বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস সামনে রেখে এই জরিপ করেছে আঁচল ফাউন্ডেশন। তাদের এই জরিপকে বর্তমান সময়ের জন্য অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ হিসেবে দেখছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এডুকেশনাল অ্যান্ড কাউন্সেলিং সাইকোলজি বিভাগের অধ্যাপক মাহাজাবীন হক। তিনি গতকাল শুক্রবার প্রথম আলোকে বলেন, এ জরিপ বৈশ্বিক এক প্রবণতাকেই তুলে ধরেছে। করোনার কারণে সারা বিশ্বে তরুণদের মধ্যে নানা বিষয় নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। তাদের স্বাভাবিক জীবন ব্যাপকভাবে বাধাগ্রস্ত হয়েছে। তাই এ বিষয়ে দৃষ্টি দেওয়া জরুরি।

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে দেশের বিভিন্ন জায়গায় শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি জরিপ পরিচালনার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে বলে আঁচল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তানসেন রোজ জানিয়েছেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘তরুণদের আত্মহননের এ চিত্র আমাদের ভাবিয়েছে। তাই আমরা এবার মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর করোনার প্রভাব দেখার চেষ্টা করেছি। ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তা, একাকিত্ব, করোনায় মৃত্যুভয়, সেশনজট ও বিয়ের জন্য পীড়াপীড়ির মতো বিষয় স্বাস্থ্যে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে বলে আমাদের জরিপে উঠে এসেছে।’

জরিপের ফল

জরিপে দেখা গেছে, ৮৪ দশমিক ৬ শতাংশ শিক্ষার্থী বিষণ্নতাসহ নানা মানসিক সমস্যায় ভুগছেন। এঁদের মধ্যে সরকারি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীই বেশি। করোনার এই দেড় বছরে গ্রামে থাকা শিক্ষার্থীদের ৮৬ দশমিক ২ ভাগ মানসিক সমস্যায় ভুগছেন। মানসিক সমস্যায় ভোগা নারী শিক্ষার্থীর হার পুরুষের চেয়ে ৭ শতাংশ বেশি। অঞ্চল ভিত্তিতে সবচেয়ে বেশি মানসিক সমস্যায় সিলেটের শিক্ষার্থীরা।

এসব শিক্ষার্থীর একটি বড় অংশ নিয়মমতো ঘুমাতে যান না। তাঁরা মুঠোফোন, ল্যাপটপ ও কম্পিউটারের সামনে বেশি সময় কাটান। যাঁরা পর্দার সামনে বেশি থাকেন, তাঁদেরই বিষণ্নতায় ভোগার হার বেশি। যাঁরা দিনে সাত ঘণ্টার বেশি সময় পর্দার সামনে কাটিয়েছেন, তাঁদের অধিকাংশই বিষণ্নতায় ভুগছেন। করোনাকালে অনলাইনে ক্লাস হয়েছে। এই ক্লাস নিয়ে অসন্তুষ্ট বেশির ভাগ শিক্ষার্থী।

দেশে করোনা সংক্রমণ কমায় দেড় বছর পর গত মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো খুলেছে। মেডিকেল কলেজগুলো খুলেছে আরও আগে। চলতি মাসেই দেশের আরও ২২টি বিশ্ববিদ্যালয় খুলছে। এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে নজর দেওয়া উচিত বলে মনে করেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক হেলাল উদ্দিন আহমেদ। তিনি গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরপরই শিক্ষার্থীদের ওপর পড়াশোনার ব্যাপক চাপ দেওয়া একেবারে উচিত হবে না। আমাদের অনেক শিক্ষক ও অভিভাবকের মধ্যে দেড় বছরের পড়াশোনা দেড় মাসে করিয়ে ফেলার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। এতে হিতে বিপরীত হবে।’

এই মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের পরামর্শ, শুরুতে কিছুদিন পাঠ্য বিষয়ের পাশাপাশি সহশিক্ষা কার্যক্রমকে প্রাধান্য দিতে হবে। শিক্ষার্থীদের বিনোদনমূলক কাজে অংশ নিতে দিতে হবে।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন