default-image

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে মাদক ব্যবসায়ীকে ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন মাদারীপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের দুই কর্মকর্তাসহ পাঁচ সদস্য। আজ বৃহস্পতিবার ভোর পাঁচটার দিকে মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার সীমানাবর্তী গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার পূর্ব রাঘদী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

হামলায় আহত পাঁচজন হলেন মাদারীপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক বিমল চন্দ্র বিশ্বাস (৫৪), সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) গোলাম কিবরিয়া (৪৩), সিপাহি মোহাম্মদ হাসান (৩০), সিপাহি সাইদুল ইসলাম (৩০) ও চালক রাসেল ইসলাম (৩১)। তাঁদের উদ্ধার করে রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার পূর্ব রাঘদী গ্রামের শাহিন শেখের (২৪) বাড়িতে সাদাপোশাকে মাদক উদ্ধারের অভিযানে যান মাদারীপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অফিসের দুই কর্মকর্তাসহ পাঁচজন। এ সময় ঘরের দরজা ধাক্কাধাক্কি করলে শাহিনের স্ত্রী সোনিয়া বেগম ‘ডাকাত’ বলে চিৎকার শুরু করেন। এ সময় আশপাশের লোকজন জড়ো হয়।

বিজ্ঞাপন

কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে এলাকাবাসী শাহীনের সহযোগিতায় তাঁদের গণপিটুনি দিয়ে আটকে রাখেন। পরে তাঁরা ওই কর্মকর্তাদের কাছ থেকে মুঠোফোন, হ্যান্ডকাফ, আইডি কার্ড ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নেন। খবর পেয়ে মুকসুদপুর উপজেলার সিন্দিয়াঘাট ফাঁড়ির পুলিশ গিয়ে আটক ব্যক্তিদের উদ্ধার করে। হামলার খবর পেয়ে মাদারীপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আসলাম হোসেন ঘটনাস্থলে যান। আহত ব্যক্তিদের রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার মন্ডল বলেন, মাদক ব্যবসায়ীদের হামলায় আহত মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পাঁচজন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। তাঁদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের বেশ চিহ্ন আছে। তবে তাঁরা কেউ ভর্তি হননি।

জানতে চাইলে মাদারীপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপপরিদর্শক (এসআই) সুনীল কুমার দে প্রথম আলোকে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভোরে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ছিলেন ছয়জন। এর মধ্যে কয়েকজন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর থানায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন।

মন্তব্য পড়ুন 0