রাশিদা আক্তার বলেন, পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে অভিযোগ করলেও তিনি প্রতিকার পাননি। এতে ক্ষুব্ধ মাসুদুর তাঁকে একটি মানব পাচারের মামলায় ফাঁসিয়ে দেন।

এসআই মাসুদুরসহ রূপনগর থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মো. জাহিদের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মাদক মামলা দেওয়ার অভিযোগ করেছেন রাসেল শিকদার। তিনি রূপনগর আবাসিক এলাকার বাসিন্দা ও একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী। গত ১ মার্চ মিরপুর বিভাগের ডিসির কাছে আবেদন করেন তিনি। এতে বলা হয়, গত ১৯ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় বাসায় ফেরার সময় মিরপুর ৭ নম্বর সেকশনের মিল্ক ভিটা সেলস সেন্টারের সামনে মাসুদুর ও জাহিদ মিলে রাসেলকে আটক করে সঙ্গে ইয়াবা আছে বলে শরীর তল্লাশি করেন। কোনো মাদক না পেলেও রাসেলকে হাতকড়া পরানো হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান রাসেলের বন্ধু হৃদয়। পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছে রাসেলকে আটকের কারণ জানতে চাইলে হৃদয়কেও আটক করা হয়। হৃদয়কে ছেড়ে দিলেও থানায় নিয়ে রাসেলের বিরুদ্ধে গাঁজা রাখার অভিযোগে মামলা করে পুলিশ।

রাসেল শিকদার প্রথম আলোকে বলেন, জামিনে মুক্ত হওয়ার পর থেকে এসআই মাসুদুর ও এএসআই জাহিদ এবং তাঁদের সোর্স আলামিন তাঁকে পুনরায় মিথ্যা মামলা দিয়ে জেল খাটানোর হুমকি দিচ্ছেন। মূলত সোর্স আলামিনের সঙ্গে মনোমালিন্যের জেরে পুলিশ তাঁকে আটক করে মিথ্যা মামলা দিয়েছে।

রাশিদা ও রাসেলের অভিযোগের বিষয়ে এসআই মাসুদুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, তিনি কাউকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেননি। অভিযুক্ত ব্যক্তিরা তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনেছেন।

নষ্ট মুঠোফোন মেরামতের কাজ করা হাবিব শেখ (২৭) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে মাদকের মামলা হওয়া নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপির কাছে লিখিত অভিযোগ করেন হাবিবের স্ত্রী সাথী আক্তার। হাবিব স্ত্রী–সন্তান নিয়ে মিরপুর–১১ নম্বরে থাকেন। লালমাটিয়ার শেখ কামাল স্কুলের সামনে ফুটপাতে তাঁর মুঠোফোন মেরামতের দোকান আছে।

সাথী আক্তারের লিখিত অভিযোগে পল্লবী থানার এসআই কাজী রায়হানুর রহমান ও এএসআই মাহবুবুর রহমানের নাম উল্লেখ আছে। বলা হয়েছে, সোর্সকে ব্যবহার করে ৯ ফেব্রুয়ারি রাতে হাবিবকে থানায় ধরে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সোর্স মিজানের মাধ্যমে সাথীর কাছে তিন লাখ টাকা চাঁদা দাবি করলে তা না দেওয়ায় হাবিবকে মাদক (হেরোইন) মামলায় ফাঁসানো হয়।

যোগাযোগ করা হলে পল্লবী থানার এসআই রায়হানুর রহমান বলেন, হাবিব শেখকে মাদকসহ ধরা হয়েছিল। তাঁকে নির্যাতন কিংবা তাঁর পরিবারের কাছে কোনো টাকা চাওয়া হয়নি।

মিরপুরের দারুস সালাম থানায় মোটরসাইকেলচালক রমজান শেখ ও যাত্রী আহমেদ নিলয়কে মাদক মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ আছে এএসআই আবদুল্লাহ আলম মামুনের বিরুদ্ধে।

মিরপুরে কয়েকটি চক্র সক্রিয়। তারাই পুলিশ সদস্যদের কাছ থেকে চাঁদা না পেয়ে অভিযোগ করেছে।
আ স ম মাহতাবউদ্দিন, উপকমিশনার, ঢাকা মহানগর পুলিশের মিরপুর বিভাগ

রমজান ও নিলয় বর্তমানে কারাগারে। রমজানের মামা মো. ইসরাফিল বলেন, গত ১০ মার্চ সকালে গাবতলীতে রমজান-নিলয়কে আটক করা হয়। টাকা না দিলে তাঁদের ইয়াবার মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। পরে রমজানের স্বজনেরা ২৫ ও নিলয়ের স্বজনেরা ৫০ হাজার টাকা এএসআই মামুনের হাতে তুলে দিলে ছেড়ে দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়। কিন্তু দুজনের নামে ৫০টি করে ইয়াবা রাখার অভিযোগে মামলা দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে এএসআই আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, সেদিন দলের নেতৃত্বে ছিলেন এসআই জাবেদুল ইসলাম। অভিযুক্ত ব্যক্তিদের কাছে ৫০টি করে ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। ওই ঘটনায় জাবেদুল দারুস সালাম থানায় মামলা করেন। তাঁরা কোনো টাকা নেননি।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন