গতকাল রাতে চোরাই গাড়িটি উদ্ধারের পর ফতুল্লা থানা-পুলিশকে খবর দিয়েছে বার আউলিয়া হাইওয়ে থানা। আইনি প্রক্রিয়া শেষে মামলার তদন্ত কর্মকর্তার কাছে গাড়িটি হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, সরোয়ার হোসেন ব্যক্তিগত গাড়িটি ভাড়ায় চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। ১২ এপ্রিল বেলা ১১টার দিকে তিনি গাড়িটি আলীগঞ্জ বাজার এলাকার স্ট্যান্ডে রেখে বাড়িতে যান। ওই দিন আর গাড়ি চালাননি। পরদিন স্ট্যান্ডে গিয়ে দেখেন, গাড়ি চুরি হয়ে গেছে। অনেক খোঁজাখুঁজির পর গাড়ির সন্ধান না পেয়ে তিনি ফতুল্লা থানায় মামলা করেন।

বার আউলিয়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী নাজমুল হক প্রথম আলোকে বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চট্টগ্রামমুখী লেনে হাইওয়ে পুলিশের একটি দল টহল দিচ্ছিল। হাইওয়ে পুলিশের টহল দলকে দেখে মহাসড়কের চৌধুরীঘাটা এলাকায় একটি ব্যক্তিগত গাড়ি মহাসড়কের পাশে দাঁড়ায়। এরপর ওই গাড়ি থেকে চালক নেমে পালিয়ে যান। পরে পুলিশ সদস্যরা গাড়ির চালককে না পেয়ে গাড়ির দরজা খুলে দেখেন, সেখানে চাবি লাগানো রয়েছে। পরে পুলিশ গাড়িটি বার আউলিয়া হাইওয়ে থানায় নিয়ে আসে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন