বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের জ্যেষ্ঠ পরিচালক (কর্মসূচি) নিনা গোস্বামী প্রথম আলোকে বলেন, ধর্ষণের সংজ্ঞাকে আরও বিস্তৃত করে জেন্ডার নিরপেক্ষ করতে হবে। যাতে সবার জন্য বিচার প্রযোজ্য হয়। সেই সঙ্গে লিঙ্গ ছাড়াও শরীরে অন্য কিছু প্রবেশ করাকেও ধর্ষণের সংজ্ঞায় ফেলতে হবে।

শ্রীপুরের ঘটনায় মামলাটির বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানতে চেয়ে যোগাযোগ করা হলে মারা যাওয়া ব্যক্তির ছেলে মামলার বাদী (২৩) বলেন, ‘ঘটনার সময় আমি আর মা নানাবাড়িতে ছিলাম। বাবা ফোনে পুরো ঘটনা জানিয়েছিল। আমি বলেছিলাম, “তুমি চিন্তা কোরো না। আমরা পুলিশের কাছে যাব।” কিন্তু বাবা নগ্ন ভিডিওর কারণে খুব ভেঙে পড়েছিল। পরদিন সকালে আত্মহত্যা করে।’

স্থানীয় কলেজে স্নাতক (পাস) কোর্সের শিক্ষার্থী ছেলেটি জানান, এ ধরনের ঘটনায় কোন ধারায় মামলা হবে, সে সম্পর্কে তাঁদের কোনো ধারণা ছিল না।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ওই সময় শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নয়ন ভুঁইয়া প্রথম আলোকে বলেন, পুরুষের ক্ষেত্রে ধর্ষণের মামলা হয় না বলে পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে। ৮ জন আসামির দুজন কারাগারে। দুজন জামিনে, অন্যরা পলাতক।

৫ শতাংশ পুরুষ ধর্ষণের শিকার

২০১৩ সালে প্রকাশিত জাতিসংঘের বহু রাষ্ট্রীয় পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের ৫ শতাংশ পুরুষ ধর্ষণের শিকার হন। ১৮ বছরের নিচে ধর্ষণসহ যৌন নিপীড়নের শিকার হয় ৩৭ শতাংশ। ওই গবেষণা প্রতিবেদনে বাংলাদেশসহ এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ছয়টি দেশের ১০ হাজার পুরুষ ও ৩ হাজার নারীর সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়। বাংলাদেশের গ্রাম ও শহরের ১৮ থেকে ৫৯ বছর বয়সী ২ হাজার ৪০০ পুরুষের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়।

বাংলাদেশের পক্ষে গবেষণাটি পরিচালনা করেছিলেন আইসিডিডিআরবির জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী রুচিরা তাবাসসুম নভেদ। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, যেসব দেশে যৌনতা নিয়ে কড়াকড়ি বেশি, ছেলেমেয়েদের আলাদা করে রাখা হয়, সেসব দেশে অনেক সময় যৌনতার প্রকাশ এভাবে ঘটে। এর বাইরে কিছু পুরুষ পুরুষের প্রতি আকৃষ্ট থাকেন। সামাজিকভাবে এসব পুরুষের কিছু করার উপায় থাকে না বলে পুরুষ ধর্ষণের দিকে ঝোঁকেন। আবার নারী ধর্ষণের মতো পুরুষ ধর্ষণকেও একধরনের ‘বাহাদুরি’ বলে মনে করেন কিছু পুরুষ।

১ জানুয়ারি রাজধানীর উত্তর ভাসানটেক থেকে শাহ আলম (৩৯) নামের এক ব্যক্তি হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার তরুণ একাধিকবার ধর্ষণের শিকার হওয়ার অভিযোগ এনেছেন।

ভাসানটেক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেলোয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, হত্যার ঘটনায় একমাত্র আসামি রহমত উল্লাহ (১৮) স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বলেছেন, শাহ আলম সমকামী ছিলেন। তাঁকে বিভিন্ন সময় যৌন নিপীড়ন করতেন। রহমতউল্লাহর দাবি অনুসারে, এর আগেও তিনি এমন ঘটনার শিকার হয়েছেন। এ কারণে ক্রোধ থেকে হত্যা করেছেন।

আইনে ফাঁক

দণ্ডবিধি ৩৭৫ এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০–এর ৯ ধারা অনুসারে ধর্ষণের সংজ্ঞা হচ্ছে, নারী ও শিশুর প্রতি পুরুষের অপরাধ সংঘটন। কোনো প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ ধর্ষণের শিকার হলেও আইনের চোখে তা ধর্ষণ নয়। আবার দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারাটি মূলত সমকামিতার অপরাধ হিসেবেই চিহ্নিত হয়।

অন্যদিকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণের সংজ্ঞায় শিশুর বয়স ১৬ পর্যন্ত বিবেচনা করে। অথচ দেশের শিশু আইনে ১৮ বছর পর্যন্ত বয়সকে শিশু বলে ধরা হয়। ফলে ১৬ বছরের বেশি বয়সী এবং ১৮ বছরের নিচের বয়সী ছেলেরা ধর্ষণের শিকার হলেও নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে বিচার পায় না।

আইনের বিভিন্ন ধারার ব্যাখ্যা দিয়ে ব্র্যাকের জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড ডাইভারসিটি বিভাগের অ্যাডভোকেসি লিড তাকবির হুদা প্রথম আলোকে বলেন, আত্মহত্যা করা ওই ব্যক্তির ঘটনাটি ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনার বিচারহীনতার সাক্ষ্য হয়ে থাকবে। নারী ধর্ষণকে ধর্ষণের ‘স্বাভাবিক’ রূপ বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে। তবে পুরুষ ধর্ষণ বাংলাদেশে এখন যে আর ‘অচিন্তনীয়’ কোনো ব্যাপার না, তা মেনে নেওয়ার সময় হয়েছে। মাদ্রাসাতেও ছেলে শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অনেক ঘটনা ঘটছে।

দণ্ডবিধির ৩৭৫ ধারায় সংশোধন চেয়ে ১৪ জানুয়ারি উচ্চ আদালতে রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তাসমিয়া নূহাইয়া আহমেদ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মাসুম বিল্লাহ ও সমাজকর্মী সৌমেন ভৌমিক।

রিটটি পরিচালনা করেন আইনজীবী তাপস কান্তি বল। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, রিটটি এখন শুনানির অপেক্ষায়। তিনি বলেন, প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ ধর্ষণের ঘটনা অনেক বেশি ঘটলেও, এটাকে ধর্ষণ বলে শনাক্ত করা হচ্ছে না। ৩৭৭ ধারায় ‘প্রকৃতিবিরুদ্ধ অপরাধ’ উল্লেখ করে দুই পুরুষের মিলিত হওয়াকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এ কারণে ধর্ষণের শিকার হয়েও উল্টো শাস্তি পাওয়ার ভয়ে অনেক পুরুষ পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন না।

তাপস কান্তি বল আরও বলেন, রিট করার সময় ধর্ষণের শিকার ১৬ বছরের কম এবং বেশি বয়সী দুটি ছেলের কথা উল্লেখ করা হয়েছিল। ১৬ বছরের কম বয়সী শিশুটি ধর্ষণের মামলা করতে পেরেছিল। তবে ১৬ বছরের বেশি বয়সী ছেলেশিশুটি পারেনি। সে থানায় ধর্ষণের মামলা করতে গেলে ৩৭৭ ধারায় মামলা নিতে চেয়েছিল পুলিশ। সে ক্ষেত্রে আরও ভুক্তভোগী হওয়ার আশঙ্কায় ছেলেটি মামলা না করে ফিরে আসে।

সাড়ে চার বছরে ১৭৪ ছেলেশিশুকে ধর্ষণ

মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সংস্থার জ্যেষ্ঠ তথ্য সংরক্ষক নার্গিস আক্তারের একটি লেখায় বলা হয়েছে, ২০১৭ থেকে ২০২১ সালের জুন মাস পর্যন্ত সাড়ে চার বছরে ১৭৫টি ছেলেশিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ধর্ষণের পর হত্যার শিকার হয়েছে ১৩ শিশু। ২০১৭ সালে ২৬, ২০১৮ সালে ৯, ২০১৯ সালে ৪১, ২০২০ সালে ৫৫ এবং চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ৮ জুন পর্যন্ত ৪৩ জন ছেলেশিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ধর্ষণের পর এক শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। আরেক শিশুকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে হত্যা করা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার ৪৩ শিশুর মধ্যে ২৫ জন মাদ্রাসার।

নার্গিস আক্তার প্রথম আলোকে বলেন, এই শিশুদের ০-১৮ বছরের গ্রুপে তালিকাভুক্ত করেছেন তাঁরা। সে ক্ষেত্রে ১৬ বছরের বেশি বয়সী কতজন ছিল, সেটা আলাদা করে হিসাব করা নেই।

এদিকে গত বছরের ১৩ অক্টোবর সরকার ধর্ষণের সাজা বাড়িয়ে মৃত্যুদণ্ড করার পর প্রথম আলো ধর্ষণ নিয়ে প্রিন্ট সংস্করণে প্রকাশিত এক মাসের খবর সংকলিত করে। ওই সময় দেখা যায়, ১৪ অক্টোবর থেকে ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত ১৮৩ জন নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হয়। এর মধ্যে শিশু ছিল ১০৬ জন। তাদের মধ্যে ছেলেশিশু ৮ জন। তবে তাদের বয়স ১৬ বছরের নিচে ছিল।

ধর্ষণের সংজ্ঞায় সংস্কার চেয়ে ২০১৮ সালের ৮ ডিসেম্বর ব্লাস্ট জাতীয় সম্মেলনের আয়োজন করেছিল।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ ব্যাপারে প্রথম আলোকে বলেন, ‘ধর্ষণ বলা হোক আর না হোক, মূল কথা হচ্ছে, এটা অপরাধ হিসেবে ভাবা হচ্ছে কি না বা সাজা হচ্ছে কি না। এ ধরনের অপরাধ দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারায় বিচার হচ্ছে। এটাকে অপরাধ হিসেবে ভাবা হচ্ছে না, তা তো নয়। এরপরও আইনে কোনো সংশোধন আনার প্রয়োজন হলে, তা নিয়ে চিন্তাভাবনা করা হবে।’

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন