বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আদালতসংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক, মিথ্যা, মানহানিকর ও উসকানিমূলক তথ্য প্রচারের অভিযোগে গত বছরের অক্টোবর মাসে কনক সারোয়ার ও দেলোয়ারের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়। মামলার তদন্ত শেষে তাঁদের বিরুদ্ধে ঢাকার আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ।

২ নভেম্বর অভিযোগপত্র আমলে নিয়ে আদালত তাঁদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন। আজ মঙ্গলবার পলাতক কনক সারোয়ার ও দেলোয়ারের সম্পদ ক্রোকের আদেশ দেন আদালত। আগামী ১৩ ডিসেম্বর সম্পদ ক্রোকের আদেশ তামিল বিষয়ে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

২০১৫ সালে পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছিলেন সাংবাদিক কনক সারোয়ার। পরে তিনি জামিনে মুক্তি পেয়ে বিদেশে চলে যান। অন্যদিকে ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিয়ে মিথ্যা, উসকানিমূলক বক্তব্য প্রচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন সাংবাদিক কনক সারোয়ারের বোন নুসরাত শাহরিন সরকার। তাঁর বিরুদ্ধেও পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন