বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চাঁদগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মইনুর রহমান আজ সোমবার প্রথম আলোকে বলেন, ‘মাহমুদার ভাই নিজামের করা মামলায় আসামি আনিসুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁকে আজ দুপুরে আদালতে হাজির করে রিমান্ডের আবেদন করা হবে।’

ওসি মইনুর রহমান বলেন, চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে মাহমুদার খাদ্যনালি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যার কারণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। নির্যাতনের কারণে এমনটা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

নিহত মাহমুদার ভগ্নিপতি আবুল কালাম প্রথম আলোর কাছে অভিযোগ করে বলেন, দুই বছর আগে আনিসুলের সঙ্গে মাহমুদার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তাঁকে নির্যাতন করে আসছিলেন স্বামী। গতকাল নির্যাতনের একপর্যায়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন মাহমুদা। তাঁকে হাসপাতালে নেওয়া হলে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

মাহমুদার মৃত্যুর ঘটনায় গতকাল রাত নয়টার দিকে নগরের একটি বেসরকারি হাসপাতালের সামনে থেকে আনিসুলকে আটক করে পাঁচলাইশ থানা–পুলিশ।

পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহিদুল কবির প্রথম আলোকে বলেন, স্ত্রীকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগে স্বামী আনিসুলকে আটক করা হয়। ঘটনাস্থল চাঁদগাঁও থানা এলাকা হওয়ায় নিহত ব্যক্তির পরিবারের পক্ষ থেকে সেখানে মামলা করা হয়েছে। এই মামলায় আনিসুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মামলার বাদী নিজামের অভিযোগ, যৌতুকের জন্য স্বামী আনিসুলের নির্যাতনে মাহমুদার মৃত্যু হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে আনিসুল বা তাঁর পক্ষের কারও বক্তব্য তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়নি।

চাঁদগাঁও থানার ওসি মইনুর রহমান বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য মাহমুদার লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আজ দুপুরে ময়নাতদন্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

ওসি মইনুর রহমান আরও বলেন, প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে, নির্যাতনে খাদ্যনালি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে মাহমুদার মৃত্যু হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর তাঁর মৃত্যুর কারণ আরও স্পষ্ট হবে। এ ঘটনায় আসামি আনিসুলকে আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন