বিজ্ঞাপন

পুলিশ জানায়, ৩ মে প্রতিপক্ষের হামলায় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি সোহাগ সিকদার ও ছাত্রলীগ নেতা কৃষ্ণচন্দ্র শীলসহ তিনজন আহত হন।

এ ঘটনায় ৫ মে আহত ছাত্রলীগ নেতা কৃষ্ণচন্দ্র শীল বাদী হয়ে হামলা ও সহিংসতার অভিযোগে ১০ জনের নাম উল্লেখ করে মোট ১৬ জনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলায় কাউন্সিলর আবুয়াল সিকদারকে প্রধান আসামি করা হয়েছে।

স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দার অভিযোগ, কাউন্সিলর আবুয়াল সিকদার ও তাঁর ছেলে এম সিকদার সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। তাঁদের একটি সন্ত্রাসী বাহিনী আছে। ওই বাহিনীর বিরুদ্ধে পুলিশের ওপর হামলাসহ একাধিক মামলা আছে। আবুয়াল সিকদার একসময় পিরোজপুর পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পরে তিনি বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। চলতি বছরের ১৬ জানুয়ারি পিরোজপুর পৌরসভার নির্বাচনে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হন।

পিরোজপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন বলেন, আবুয়াল সিকদার একসময় বিএনপি করতেন। তবে দীর্ঘদিন ধরে দলের সঙ্গে তাঁর কোনো সম্পর্ক নেই। তিনি এখন বিএনপির কোনো পদেও নেই।

পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ জেড এম মাসুদুজ্জামান বলেন, গতকাল রাতে অভিযান চালিয়ে কাউন্সিলর আবুয়াল সিকদারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আজ সোমবার তাঁকে আদালতে সোপর্দ করার কথা রয়েছে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন