পরে শিশুটির চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন দূরে গেলে অভিযুক্ত যুবক ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান। মা–বাবাকে খবর দেওয়া হলে তাঁরা শিশুটিকে উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। ওই দিনই সেখান থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। শিশুটি বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি।

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে সীতাকুণ্ড থানায় মামলা করেন। র‍্যাব-৭ চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক গণমাধ্যম নুরুল আবসার প্রথম আলোকে বলেন, ঘটনার পর আসামি অন্য এলাকায় পালিয়ে যান। পরে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে খবর পেয়ে জোরারগঞ্জ থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। আসামি শাহীনকে সীতাকুণ্ড থানা-পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন