উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন প্রথম আলোকে বলেন, মাসুদ সাত বছর ধরে ছিনতাই করে আসছেন। তিনি এটিএম বুথ থেকে বেরিয়ে আসা লোকজনকে ছিনতাইয়ের জন্য বেছে নিতেন। বুথ থেকে কেউ টাকা তুলে বের হওয়ার পর মাসুদ তাঁর পিছু নেন। পরে সুবিধাজনক স্থানে গিয়ে তাঁকে ধাক্কা দিয়ে অপ্রস্তুত করে সুযোগে তিনি ব্লেড দিয়ে ব্যাগ অথবা প্যান্টের পকেট কেটে ওই টাকা ছিনিয়ে পালিয়ে যান। পুরো কাজটি করতে তাঁর কয়েক সেকেন্ড সময় লাগে।

পুলিশ জানায়, রোববার বেলা একটার দিকে এটিএম বুথ থেকে ৪ লাখ ১৫ হাজার টাকা তুলে অফিসে যাচ্ছিলেন অ্যাডভান্স পোলট্রি নামের একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী ইছাহাক আলী। তাঁকে এটিএম বুথ থেকে অনুসরণ করছিলেন মাসুদ। পরে রাজলক্ষ্মী পদচারী–সেতুতে যাওয়ার পর মানুষের ভিড়ে ইছাহাককে ধাক্কা দেন মাসুদ।

এতে তাঁর সন্দেহ হয়। তিনি ফিরেই দেখেন তাঁর ব্যাগ ব্লেডে কাটা। সঙ্গে সঙ্গে তিনি চিৎকার করলে সেখানে থাকা টহল পুলিশ সদস্যরা মাসুদকে গ্রেপ্তার করে টাকা উদ্ধার করেন। মাসুদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা রয়েছে।

মাসুদ ঢাকার কাফরুল থানার ইব্রাহিমপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন। তাঁর বাবার নাম রাজন খান।