আজ রোববার র‍্যাব–১০–এর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গতকাল শনিবার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এলাকা থেকেই ইমামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি শিশুটিকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন। তাঁর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন, ডাকাতির প্রস্তুতি ও মাদকের তিনটি মামলা রয়েছে।

র‍্যাবের তথ্য অনুযায়ী, ৯ জুলাই মুন্সিগঞ্জ থেকে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এলাকায় নানাবাড়িতে বেড়াতে এসেছিল শিশুটি। নানাবাড়ির পাশেই আরেক আত্মীয়ের বাড়ি রয়েছে তাদের। ওই বাড়িতে মাঝেমধ্যে আসা–যাওয়া করত শিশুটি। বৃহস্পতিবার শিশুটি ওই আত্মীয়ের বাসায় বেড়াতে যাওয়ার সময় ইমাম তাকে ধর্ষণ করেন।

ঘটনার পর স্বজনেরা শিশুটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান–স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) নিয়ে আসেন। পরে মেয়েটির বাবা অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তিকে আসামি করে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় মামলা করেন। পুলিশের পাশাপাশি র‍্যাব মামলাটির ছায়া তদন্ত শুরু করে। ঘটনাস্থলের আশপাশের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে আসামিকে শনাক্ত করা হয়।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন