বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, বালিকা ও তাঁর স্বামী স্থলবন্দরে পাথর ভাঙার কাজ করেন। শনিবার বিকেলে বালিকা হাউই বন্দরের কাজ শেষে নালিতাবাড়ী-নাকুগাঁও দুই লেন সড়ক ধরে হাঁটতে হাঁটতে বাড়ি ফিরছিলেন। বিকেল সাড়ে পাঁচটার সময় চারআলী বাজারে একটি অটোরিকশা পেছন থেকে তাঁকে ধাক্কা দেয়। এ সময় বালিকা হাউই সড়কে ছিটকে পড়ে। পরে চালক অটোরিকশা ফেলে দ্রুত পালিয়ে যান। এলাকাবাসী অটোরিকশাটি আটক করেন।

পথচারীরা দ্রুত বালিকাকে উদ্ধার করে আরেকটি অটোরিকশায় তুলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

নয়াবিল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ইউনুস আলী দেওয়ান প্রথম আলোকে বলেন, স্বামী-স্ত্রী দুজন নাকুগাঁও স্থলবন্দরে শ্রমিকের কাজ করেন। এঁরা অত্যন্ত গরিব মানুষ। পেছন থেকে অটোরিকশা চাপা দেওয়ায় বালিকা হাউই গুরুত্বর আহত হন। পরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

নালিতাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বছির আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন