বিজ্ঞাপন

শাহ নূর জালাল প্রথম আলোকে বলেন, ‘৫৭ বছর পর বাবাকে দেওয়া জমির দখল পেলাম। এ জন্য প্রশাসনকে ধন্যবাদ। এই জমির বিষয়টি নিয়ে বাবার অনেক দুঃখ ছিল। এই দুঃখের কথা তিনি একটি গানে লিখেছেন।’

জেলা প্রশাসনে দেওয়া লিখিত আবেদন সূত্রে জানা যায়, অসংখ্য জনপ্রিয় গানের রচয়িতা শাহ আবদুল করিম ভূমিহীন ছিলেন। উজানধল গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে করিমের প্রিয় নদী কালনি। এই নদীর কথা তিনি অসংখ্য গানে উল্লেখ করেছেন। নদীর উত্তর পারে উজানধল এবং দক্ষিণ পারে জালালপুর ও তাড়ল গ্রাম। বাউল করিমের নিজের কোনো জমিজিরাত ছিল না। ১৯৬৪ সালে স্থানীয় প্রশাসন জালালপুর গ্রামের পাশে তাঁকে ২ একর ১১ শতক জমি স্থায়ীভাবে বন্দোবস্ত দেয়। এই জমি তাঁর নামে রেকর্ড হয়েছে। শুরু থেকেই জমির খাজনাও পরিশোধ করছেন। কিন্তু যখনই জমির দখলে যেতে চেয়েছেন, তখনই বাধা দিয়েছে তাড়ল গ্রামের একটি পক্ষ। জমির দখল না পাওয়ার দুঃখ সঙ্গে নিয়েই ২০০৯ সালে মারা যান শাহ আবদুল করিম। এরপর নানাভাবে জমির দখল পাওয়ার চেষ্টা করেন তাঁর ছেলে বাউল শাহ নূর জালাল। অবশেষে মঙ্গলবার সেই জমির দখল পেলেন তিনি।

এ সময় ইউএনওর সঙ্গে দিরাই পৌরসভার মেয়র বিশ্বজিৎ রায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সোহেল মিয়া, দিরাই সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাফর ইকবাল, মুক্তিযোদ্ধা দয়াময় দাস, দিরাই প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ইউএনও মাহমুদুর রহমান মামুন বলেন, ‘এলাকার বিশিষ্টজনদের সঙ্গে নিয়ে সবার সঙ্গে আলোচনা করেই বিষয়টির মীমাংসা করেছি। শাহ আবদুল করিমকে সরকার থেকে দেওয়া জমি মাপজোখ করে পিলার ও সাইনবোর্ড বসিয়ে তাঁর পরিবারকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। আশা করি, আর কোনো সমস্যা হবে না।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন