বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কয়েক বিঘা জমির মাঝে দাঁড়িয়ে আছে জরাজীর্ণ ও ভগ্নপ্রায় ঐতিহাসিক ‘রাজ-রাজেশ্বরী মন্দির। মধ্যযুগীয় নানা পুরাকীর্তির নিদর্শন ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে পুরো মন্দিরে। গাছপালা আর লতাগুল্মে ছেয়ে গেছে পুরোনো মন্দির। খসে পড়েছে পলেস্তারা। দেখা দিয়েছে ফাটল। পুরো মন্দির দখলে নিয়েছে চামচিকা ও আর হরেক রকম সরীসৃপ। ভেতরের অংশে চার-পাঁচটি ভাগ রয়েছে। প্রথম ভাগের চারপাশে রয়েছে ঘূর্ণমান টানা অলিন্দ। মন্দিরের পেছন কোণে রয়েছে একটি ছোট কামরা। রাজ শ্মশানেশ্বরীতে ভাওয়াল রাজার পরিবারের মৃত সদস্যদের নামে নামফলক ও সৌধ ছাড়াও শ্মশান চত্বরে মোগল স্থাপত্যশৈলীতে নির্মিত সাত স্তম্ভবিশিষ্ট একটি সমাধিস্থল আছে। শিবমন্দিরও আছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, ভাওয়াল রাজবাড়ি শ্মশান গাজীপুরের একটি ঐতিহাসিক নিদর্শন। কিন্তু এখানে এর কোনো নির্মাণকাল লেখা নেই। নেই কোনো ফলক। আছে শুধু প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের সতর্কীকরণ সাইনবোর্ড। সেখানেও নির্মাণের সময়কাল লেখা নেই।

স্থানীয় লোকজন জানান, দিন দিন শ্মশানের জমি দখল হওয়ায় কিছুদিন আগেই এর চারদিকে সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ করা হয়। এর ভেতরে আছে একটি শিব মন্দির। সেটিও বহু বছর আগের। কিন্তু নতুন রং করা হয়েছে। এর পূর্ব পাশে শ্মশান মঠ। সামনের দিকে তিনটি মঠের নির্মাণশৈলী সাদামাটা। বাকি চারটি মঠে অনেক কারুকাজ করা হয়েছে। কিছু কিছু অংশ ভেঙে গেছে। সামনে একটি মাঠের মতো স্থান আছে। এর পূর্ব দিকে আছে একটি জরাজীর্ণ পুকুর। পুকুরের পাশেই শ্মশান।

ইতিহাস-ঐতিহ্যে গাজীপুর বইয়ের লেখক মনির মুননা জানান, ১৮৫৬ সালে কালী নারায়ণ রায় বংশানুক্রমে জমিদারির দায়িত্ব পান। জমিদারি পরিচালনার জন্য ব্রিটিশ সরকার তাঁকে রায় চৌধুরী এবং রাজা উপাধিতে ভূষিত করে। সে বছরই তিনি মারা যান। কালী নারায়ণের শাসনামলে ভাওয়াল রাজবাড়ী এবং ভাওয়াল রাজ শ্মশানেশ্বরী নির্মাণ করা হয়। ভারতের কলকাতার বিখ্যাত স্থপতি কামাখ্যা রায় এ শ্মশানেশ্বরীর নকশা করেন।

ভাওয়াল রাজ শ্মশান মন্দিরের সভাপতি নেপাল চন্দ্রবর্তী বলেন, ভাওয়াল রাজ শ্মশানের জায়গা ১৭-১৮ বিঘা। ব্যবহৃত হচ্ছে মাত্র ছয় বিঘা। বাকি জমি প্রভাবশালীরা ইজারার নামে দখল করে নিয়েছেন। এখানে কালী, সরস্বতী, বাসন্তী ও শিবপূজা হয়।

গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এস এম তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘ভাওয়াল রাজ শ্মশান একটি ঐতিহাসিক নিদর্শন। এটি রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব। এটি রক্ষার জন্য এরই মধ্যে সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ করা হয়েছে। আরও কাজ করা হবে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন