বক্তারা আরও বলেন, হাওরের অর্থনীতির চাকা ঘুরছে। দেশবাসীর নজর কেড়েছে। কিন্তু হাওরের অবহেলিত জনপদের মানুষের এই ভালো সহ্য হচ্ছে না দেশের একশ্রেণির মানুষের। তাঁরা সিলেট ও সুনামগঞ্জের বন্যার দায় চাপাচ্ছে সড়কটির ওপর। শুধু তা–ই নয়, সড়কটিকে দায়ী করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। অথচ বিশেষজ্ঞদের মতে, সিলেট ও সুনামগঞ্জের বন্যার সঙ্গে সড়কটির কোনো যোগসূত্র নেই। কারণ, এখনো সড়কের দুই পাশের পানি সমান। যদি সড়কের কারণে পানিপ্রবাহ বাধাগ্রস্ত হতো, তাহলে এক পাশে পানি বেশি থাকত, অন্য পাশে কম। এই অপপ্রচার অজ্ঞতা ও পরশ্রীকাতরতা ছাড়া কিছুই নয়। কর্মসূচি থেকে বক্তারা অল-ওয়েদার সড়ক নিয়ে অপপ্রচার বন্ধের আহ্বান জানান।

মানববন্ধনে কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ আফজল, অষ্টগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুল হক হায়দারী, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম, সরকারি রোটারি ডিগ্রি কলেজের অধ্যাপক সৈয়দা নাসিমা আক্তার, কাস্তুল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম, পূর্ব অষ্টগ্রাম ইউপির চেয়ারম্যান কাছেদ মিয়া, দেওঘর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুজন খান প্রমুখ বক্তব্য দেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রায় ৯০০ কোটি টাকা ব্যয়ে কিশোরগঞ্জের ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলাকে যুক্ত করে সারা বছর চলাচল উপযোগী পাকা সড়ক নির্মাণ করে সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ। অল–ওয়েদার সড়ক নামে পরিচিত সড়কটি ২০২০ সালরে ৮ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন