বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আদালত সূত্রে জানা গেছে, আজ বিকেল পাঁচটার দিকে শামসুদ্দোহা সাদী আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। এ সময় তিনি আদালতকে বলেন, ‘জুনিয়র-সিনিয়র’ বিরোধের জেরেই আরিফুলকে ছুরিকাঘাত করেছিলেন। তাঁরা একই কলেজে পড়লেও শামসুদ্দোহা আরিফুলের বড়। জ্যেষ্ঠ-কনিষ্ঠ নিয়ে আরিফুলের সঙ্গে বিরোধ ছিল শামসুদ্দোহার। এরই জেরে ২১ অক্টোবর কলেজে আসার পর আগে থেকেই কলেজে অবস্থান করা শামসুদ্দোহা আরিফুলের ঊরুতে ছুরিকাঘাত করেন। এরপর পালিয়ে যান তিনি।

আরিফুল হত্যা ঘটনার পর থেকে ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত কলেজে পাঠদান বন্ধ ছিল। ঘটনার মূল অভিযুক্ত শামসুদ্দোহা গ্রেপ্তারের পর গতকাল থেকে কলেজে আবার পাঠদান শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের মূল অভিযুক্ত শামসুদ্দোহাকে আদালতে আনার খবরে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা আদালত প্রাঙ্গণে জড়ো হন। তাঁরা শামসুদ্দোহার ফাঁসির দাবি জানিয়ে স্লোগান দেন। এ সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সতর্ক অবস্থানে থাকতে দেখা গেছে।

এর আগে আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নগরের মিরাবাজার এলাকায় সিলেট জেলা ও মহানগর সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার সুজ্ঞান চাকমা নিজ কার্যালয়ে সংবাদ ব্রিফিং করেন। এ সময় তিনি বলেন, আজ সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে শামসুদ্দোহাকে সঙ্গে নিয়ে অভিযান চালিয়েছে সিআইডি। এ সময় হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে। দক্ষিণ সুরমা উপজেলার সিলাম হাজীপুর এলাকার একটি ডোবা থেকে ছুরিটি উদ্ধার করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সুজ্ঞান চাকমা বলেন, নিহত আরিফুল ও শামসুদ্দোহা সাদী ছাত্রলীগের সঙ্গে জড়িত থাকলেও হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি রাজনৈতিক ছিল না বলে জানিয়েছেন শামসুদ্দোহা সাদী। জিজ্ঞাসাবাদে শামসুদ্দোহা বলেছেন, ‘সিনিয়র-জুনিয়র’ বিরোধের জেরে ছুরিকাঘাতের ঘটনা ঘটেছে এবং এতেই আরিফুলের মৃত্যু হয়েছে। মামলার অপর অভিযুক্ত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারের অভিযান চলছে বলে জানান সুজ্ঞান চাকমা।

এদিকে আরিফুল হত্যা ঘটনার পর থেকে ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত কলেজে পাঠদান বন্ধ ছিল। ঘটনার মূল অভিযুক্ত শামসুদ্দোহা গ্রেপ্তারের পর গতকাল থেকে কলেজে আবার পাঠদান শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ মো. শামছুল ইসলাম।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন