স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আজ সকালে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রাশেদুল ইসলাম তাঁর কর্মী-সমর্থক নিয়ে জনসংযোগ শুরু করেন। ১ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে তাঁরা দুপুর ১২টার দিকে ২ নম্বর ওয়ার্ডের নুরুল ইসলাম চেয়ারম্যান বাড়ির পাশে গেলে হামলার শিকার হন। এ সময় তাঁর চার কর্মী আহত হয়েছেন।

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রাশেদুল ইসলাম চৌধুরী অভিযোগ করেন, ‘আমাদের লোকজনের ওপর আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন হামলা চালিয়েছে। এতে চারজন আহত হয়েছেন। প্রতিদিনই আমাদের নির্বাচনী প্রচারে বাধা দেওয়া হচ্ছে।’
অভিযোগের বিষয়ে জানার জন্য আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহাম্মদ ইদ্রিচের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলে তিনি ধরেননি।

আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম দিদারুল ইসলাম শিকদার প্রথম আলোকে বলেন, নির্বাচনী প্রচারে বাধা বা হামলা–সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ থানায় আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন