প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যত দ্রুত সম্ভব এই বিমানবন্দর চালু করার চেষ্টা করব। তবে পানি না নামলে আমাদের তেমন কিছু করার নেই। ফ্লাইট বন্ধ থাকায় যাত্রীদের অনেক ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। আমরাও ফ্লাইট চালুর জন্য প্রস্তুত রয়েছি। পানি নামলেই ফ্লাইট চালু করা হবে।’ সারা দেশেই বন্যা দেখা দিয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘পুরো দেশই বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত। সরকার ও আওয়ামী লীগ মিলে প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় বন্যাদুর্গতদের জন্য কাজ করছে। এসব দুর্যোগ-দুর্বিপাক সঙ্গে নিয়েই আমাদের চলতে হবে।’

বিমানবন্দর পরিদর্শনে প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে থাকা বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের সদস্য (পরিচালন) এয়ার কমোডর সাদেকুর রহমান বলেন, নিরাপত্তার স্বার্থে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ফ্লাইট বন্ধ রাখা হয়েছে। আজ থেকে ফ্লাইট চালুর কথা থাকলেও অ্যাপ্রোচ লাইট তলিয়ে থাকায় আরও কয়েক দিন ফ্লাইট বন্ধ থাকতে পারে।

বিমানবন্দরের কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্যে জানা গেছে, ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রানওয়ে থেকে পানি নামলেও অ্যাপ্রোচ লাইট তলিয়ে রয়েছে। গত শুক্রবার বিকেলে বন্যার পানি রানওয়েতে চলে আসায় এবং বিমানবন্দরের যন্ত্রপাতিতে পানি প্রবেশ করায় বিমান ওঠানামা বন্ধ ঘোষণা করা হয়। পরিবর্তন করা হয় লন্ডন ফ্লাইটের শিডিউল। রোববার থেকে বিমানবন্দরের রানওয়ের পানি নামতে শুরু করলেও এখনো তলিয়ে রয়েছে অ্যাপ্রোচ লাইট।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন