বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

লালমনিরহাট জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক কমিটির সদস্যসচিব জাহিদ হাসান বলেন, রফিকুল ইসলামের জনসমর্থন আছে।

২০১৬ সালের আগে রফিকুল ইসলাম লালমনিরহাট সদর উপজেলার হারাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। ওই বছরের ৭ মে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয়ী হন। নির্বাচনের পরে তাঁকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়।

২০১৮ সালের ২৩ ডিসেম্বর রফিকুল ইসলাম বিএনপির রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও লালমনিরহাট-৩ (সদর) আসনের সাবেক সাংসদ আসাদুল হাবিবের হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বিএনপিতে যোগ দেন।

লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান বলেন, নিজের ব্যক্তিগত স্বার্থের জন্য যাঁরা ঘন ঘন দল বদল করেন, তাঁদের রাজনৈতিক নীতি ও আদর্শ সুবিধাবাদীদের মতো।

এ বিষয়ে রফিকুল ইসলাম বলেছেন, দল বদল করেছেন এলাকার মানুষের উন্নয়নের জন্য। নিজের জন্য নয়। যে দলে গেলে তাঁর নির্বাচনে জয়ের সম্ভাবনা আছে, তিনি সেই দলেই যোগ দিয়েছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন