দাপ্তরিক আদেশে উল্লেখ করা হয়, চাঁদপুর অংশে পদ্মা ও মেঘনা নদীর নাব্যতা রক্ষা, ইলিশের অভয়াশ্রম রক্ষা, ভাঙনরোধসহ নদীসম্পদ রক্ষায় চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন। জেলে ও স্থানীয় ব্যক্তিদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্টদের মতামতের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়। জেলা প্রশাসকের পাঠানো ওই প্রতিবেদনের আলোকে এ কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান বলেন, ‘সম্প্রতি আমাদের সমন্বয় সভা, ইলিশ রক্ষায় টাস্কফোর্সের সভা এবং নদী রক্ষা কমিটির সভা হয়। এসব সভায় সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য এবং মতামতে নদী থেকে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনের ক্ষতিকর দিকগুলো উঠে এসেছে। এরপর আমরা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, ভূমি মন্ত্রণালয়, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, নদী রক্ষা কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়ে চিঠি দিয়ে জানিয়েছি।’

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, ওই চিঠিতে পদ্মা ও মেঘনার নদীসম্পদ রক্ষায় এবং সরকারি রাজস্ব আদায়ের স্বার্থে এ–সংক্রান্ত উচ্চ আদালতের রিট পিটিশন, সিভিল পিটিশন ফর লিভ টু আপিল মামলা এবং সিভিল রিভিউ পিটিশনের আদেশগুলোর বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন