স্থানীয় বাসিন্দা ও জান্নাতির পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দুপুরে চরখাগদী এলাকায় বাড়ির সামনে বন্ধুদের সঙ্গে খেলা করছিল জান্নাতি। খেলা শেষে বাড়িতে ফিরে যাওয়ার জন্য শেখ হাসিনা মহাসড়ক পার হতে যায় সে। এ সময় একটি অটোরিকশা তাকে ধাক্কা দেয়। এতে গুরুতর আহত হয় জান্নাতি। পরে স্বজন ও স্থানীয় বাসিন্দারা তাকে উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত জান্নাতিকে হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, অটোরিকশার আঘাতে শিশুটি বুকের পাঁজরে তীব্র আঘাত পেয়ে পাঁজরের হাড় ভেঙে গেছে। এতেই শিশুটির মৃত্যু হয়।

দুই বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে জান্নাতি সবার ছোট। জান্নাতির বাবা দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘আমাগো ঈদ মাটি হয়ে গেল। মেয়েটা কইছিন নতুন জুতা আর জামা পরবে। ওর জন্য নতুন জামা কিনে আনলাম, আর আল্লায় ওরে নিয়া গেল।’

কোনোভাবেই সন্তানের মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না জান্নাতির মা ফাহিমা বেগম। আহাজারি করতে করতে বলছিলেন, ‘আমার জান্নাতি মরে যেতেই পারে না। তোমরা ওরে ফিরাইয়া দাও। আল্লারে তুমি আমারে লইয়া যাও, আমার মাইয়াডারে ফিরাইয়া দাও।’

মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম মিঞা প্রথম আলোকে বলেন, শিশুটি রাস্তা পার হচ্ছিল। এ সময় অটোরিকশার ধাক্কায় প্রথমে শিশুটি গুরুতর আহত হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যায়। দুর্ঘটনার পরপরই অটোরিকশা নিয়ে চালক পালিয়ে গেছেন। পুলিশ অটোরিকশার চালককে আটকের চেষ্টা চালাচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন