বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আলু তোলার মৌসুমের সময় প্রতি কেজির দাম ছিল ১৩ থেকে ১৪ টাকা। অনেকেই বেশি দামের আশায় তখন বিক্রি না করে আলু হিমাগারে সংরক্ষণ করেন। এমনই একজন তারাগঞ্জের ইকরচালি দোলাপাড়া গ্রামের চাষি মাহুবার হোসেন (৬১)। গত মৌসুমে আলুর বীজের দাম ছিল বেশি। মাহুবার এক একর জমিতে কার্ডিনাল জাতের আলুর চাষ করতে খরচ করেন ৭৯ হাজার টাকা। ঘরে তোলেন ১৩০ বস্তা আলু (প্রতি বস্তা ৫০ কেজি)। তখন বাজারে আলুর দাম ছিল ১৩ টাকা কেজি। মাহুবার বলেন, ‘তখন না বেচেয়া লাভের আশাত স্টোরোত (কোল্ড স্টোরেজ) থুইনো। এ্যালা দাম করোচে ৮ টাকা কেজি। লাভ তো দূরের কথা আসল থাকিও নাই। হামরা বাঁচমো কেমন করি!’

উপজেলা কৃষি বিভাগের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত মৌসুমে তারাগঞ্জে ৪ হাজার ২০০ হেক্টর ও বদরগঞ্জে ৩ হাজার ২৬৫ হেক্টরে আলুর চাষ হয়। দুই উপজেলার ছয়টি হিমাগারে আলু রাখা হয় প্রায় আট লাখ বস্তা। এখনো মজুত আছে প্রায় ছয় লাখ বস্তা।

কৃষি বিভাগের দুজন কর্মকর্তা ও সাতজন আলুচাষি জানান, গত বছর এই সময়ে ৫০ কেজির প্রতি বস্তা আলু ১ হাজার ৮০০ টাকা থেকে ২ হাজার টাকায় বিক্রি করেছিলেন চাষিরা। ২০১৪ সালেও আলু হিমাগারে রেখে লাভবান হয়েছিলেন তাঁরা। মাঝের বছরগুলোতেও আলু চাষ করে চাষিরা উৎপাদন খরচও তুলতে পারেননি।

এদিকে অনেক চাষিই আলু রেখে হিমাগারমালিকদের কাছে থেকে ঋণ নিয়েছিলেন। আলু নিতে চাইলে এখন সে ঋণও শোধ করতে হবে। তারাগঞ্জের এন এন হিমাগারের ব্যবস্থাপক ডালিম মিয়া বলেন, তাঁর হিমাগারে আলু ছিল ২ লাখ ১৮ হাজার বস্তা। এখনো পড়ে আছে ১ লাখ ৪৬ হাজার বস্তা। প্রতি বস্তার বিপরীতে চাষিদের ঋণ দেওয়া হয়েছিল ২৫০ টাকা করে। বাজারে আলুর দাম পড়ে যাওয়ায় লোকসানের ভয়ে চাষিরা হিমাগারের ধারেকাছেও ঘেঁষছেন না।

তারাগঞ্জ উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা ঊর্মি তাবাসসুম বলেন, গত বছর আলুর দাম বেশি ছিল। তাই চড়া দামে বীজ কেনায় আলুর উৎপাদন খরচ পড়েছিল বেশি। গত বছরের তুলনায় এবার বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় শাকসবজির আবাদ ভালো হয়েছে। আলুর তুলনায় শাক–সবজির চাহিদাও এখন বেশি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন