বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দুই মামলাতেই আসামি করা হয়েছে প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার হাসনীপুর গ্রামের আসমা শারমিন আঁখি (২৬) ও পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার পুন্ডুরিয়া গ্রামের মো. জাহাঙ্গীর আলমকে (৩১)। এ ছাড়া আরও চার থেকে পাঁচজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে। আসমা ও জাহাঙ্গীরই এ প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতেন। সিলেট শহরতলির বটেশ্বর গইলাপাড়া এলাকায় আঁখি সুপার শপ নামের একটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতেন। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি তালাবদ্ধ পাওয়া গেছে।

মামলা দুটির বাদী সিলেট নগরের শাহপরান উপশহর এলাকার বাসিন্দা মো. জিয়াউর রহমান (৪০) ও মো. আশরাফ হোসেন (৪৭)। আশরাফ হোসেন ৯ লাখ ৬১ হাজার ৭২০ টাকা এবং জিয়াউর রহমান ৩ লাখ ৭ হাজার ২০০ টাকা প্রতারণার শিকার হয়েছেন বলে মামলায় উল্লেখ করেছেন।

এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, আঁখি সুপার শপ কর্তৃপক্ষ ফেসবুক পেজের মাধ্যমে ‘একটি পণ্য কিনলে একই পণ্য আরেকটি ফ্রি তথা শতভাগ ক্যাশব্যাক’ বলে ব্যাপক প্রচারণা চালায়। এ প্রচারণা দেখে দুজন বাদী আরও কয়েকজন সহযোগী নিয়ে প্রতিষ্ঠানটিতে যান। তাঁরা গত বছরের জুলাই থেকে নভেম্বর পর্যন্ত দুটি মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস সামগ্রী এবং তেল-দুধ ক্রয়ের জন্য একটি বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের অ্যাকাউন্টে টাকা জমা দেন।

এজাহারে আরও বলা হয়, টাকা জমা দেওয়ার পর মামলার দুই বাদীকে প্রতিষ্ঠানটি ক্রয় মেমোও দেয় এবং দ্রুতই পণ্য বাসায় পৌঁছে দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়। তবে সেসব পণ্য যথাসময়ে তাঁরা না পেলে প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট মুঠোফোন নম্বরে যোগাযোগ করে বন্ধ পান। এরপর প্রতিষ্ঠানের কার্যালয়ে গিয়ে সেটি বন্ধ দেখতে পান। পরে বিভিন্ন গ্রাহকদের সঙ্গে যোগাযোগ হলে তাঁরা জানতে পারেন, তাঁদের মতো আরও গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ করে আসামিরা পালিয়ে গেছেন।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করতে আঁখি সুপার শপের মুঠোফোন নম্বরে যোগাযোগ করলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। তবে গত ২৯ ডিসেম্বর আঁখি সুপার শপের পেজে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতির কারণে সাময়িকভাবে তাঁরা প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ রেখেছেন।

গত ২৭ ডিসেম্বর থেকে আঁখি সুপার শপ নামের প্রতিষ্ঠানটিও তালাবদ্ধ আছে। প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা পালিয়ে যাওয়ার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে গ্রাহকেরা সেখানে গিয়ে বিক্ষোভ করেন। শনিবার বিকেলে বটেশ্বর এলাকার সড়ক অবরোধ করে ভুক্তভোগী গ্রাহকেরা টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন।

default-image

এই গ্রাহকেরা অভিযোগ করেন, আঁখি সুপার শপ ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে অনলাইনভিত্তিক ব্যবসা শুরু করে। এর বাইরে সুপার শপের মাধ্যমেও তারা বটেশ্বর এলাকায় ব্যবসা পরিচালনা করত। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ হতে নানা সময়ে ৯০ দিন এবং ৩০ দিনের একাধিক প্যাকেজ অফার ফেসবুক পেজে জানানো হতো। এসব প্যাকেজে একটি পণ্য কিনলে আরেকটি পণ্য ফ্রি দেওয়া হতো। এ অফারের মধ্যে মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস ও গ্রোসারি পণ্য থাকত। এ অফারে অনেক গ্রাহক অংশ নিয়ে একটি ক্রয় করা পণ্যের সঙ্গে একই পণ্য আরেকটা বিনা মূল্যে পেয়েছেন।

একাধিক গ্রাহক অভিযোগ করেছেন, গত বছরের ১৩ নভেম্বর থেকে আঁখি সুপার শপের পক্ষ থেকে এমন একটি অফার দিয়ে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হয়। এ প্রচারণায় প্রলুব্ধ হয়ে অন্তত ৪০০ থেকে ৫০০ গ্রাহক মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন পণ্য কিনতে টাকা জমা দেন। অন্তত ১৫ থেকে ২০ কোটি টাকা প্রতিষ্ঠানটি এভাবে জমা নিয়েছে বলে কয়েকজন গ্রাহক ধারণা করছেন। এই টাকা নিয়েই আসমা ও জাহাঙ্গীর পালিয়ে গেছেন বলে তাঁরা অভিযোগ করেন।

এ বিষয়ে সিলেট মহানগরের শাহপরান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আনিসুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, আঁখি সুপার শপের প্রতারণার বিষয়টি একাধিক ভুক্তভোগী গ্রাহকের কাছ থেকে শুনেছেন। প্রাথমিকভাবে এর সত্যতাও পাওয়া গেছে। অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন