বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ নওয়াপাড়া পৌরসভায় ৩০টি কেন্দ্রে ইভিএম (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ করা হচ্ছে। নির্বাচনে মেয়র পদে তিনজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বর্তমান মেয়র সুশান্ত দাস। এ ছাড়া হাতপাখা নিয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এইচ এম মহাসিন শেখ এবং লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে জাতীয় পার্টির মো. আলমগীর ফারাজী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এইচ এম মহাসিন শেখ বলেন, ‘ভোট শুরু হওয়ার এক থেকে দুই ঘণ্টা পর বেশির ভাগ ভোটকেন্দ্র থেকে আমার এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। কয়েকটি কেন্দ্রে এজেন্টদের ঢুকতে দেওয়া হয়নি। একজন নারী এজেন্টসহ চারজন এজেন্টকে মারধর করা হয়েছে। কেন্দ্রে ঢোকার সময় আমাকে কটূক্তি করা হয়েছে। বিষয়টি মুঠোফোনে কয়েকবার রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। তিনি দেখছি বলে আশ্বস্ত করেছেন। কিন্তু তিনি ব্যবস্থা নেননি। এ জন্য নওয়াপাড়া প্রেসক্লাবের সামনে যশোর-খুলনা মহাসড়কে দাঁড়িয়ে ফেসবুক লাইভে ভোট বর্জনের ঘোষণা দিতে বাধ্য হয়েছি।’

অভয়নগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আমিনুর রহমান বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ চলছে। এজেন্টদের কেন্দ্রে ঢুকতে না দেওয়া, কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া এবং মারধরের ঘটনায় কেউ আমাদের কোনো অভিযোগ দেননি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন