বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নাজমুল ইসলাম রোববার বেলা দেড়টার সময় তাঁর বাসার সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় আকস্মিকভাবে একটি মাইক্রোবাস এসে তাঁর সামনে দাঁড়ায়। ওই মাইক্রোবাস থেকে কয়েকজন সন্ত্রাসী নেমে দা দিয়ে কুপিয়ে নাজমুল ইসলামকে ফেলে যায়। ভয়ে প্রথমে কেউ এসে আহত ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করেননি। দীর্ঘ সময় ঘটনাস্থলে গুরুতর আহত অবস্থায় নাজমুল ইসলাম পড়ে ছিলেন। পরে তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে তাঁকে দ্রুত সিলেটের উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সন্ধ্যা সাতটায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়।

এলাকাবাসী জানান, হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় মুঠোফোনের ভিডিওতে ব্যবসায়ী নাজমুল তাঁর ওপর হামলাকারী চারজনের নাম উল্লেখ করেছেন। তাঁর সঙ্গে একটি পক্ষের ব্যবসায়িক বিরোধ চলছিল। তাঁদের ধারণা, এ বিরোধের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে।

কমলগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা বলেন, খবর পেয়ে সন্ধ্যার পর পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যায়। এখন ময়নাতদন্ত করে তাঁর লাশ পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত (রাত ৯টা) থানায় কোনো অভিযোগ করা হয়নি। তারপরও পুলিশ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন