রিফাত বিন আলিফ শৌলজালিয়া ইউনিয়নের তালগাছিয়া গ্রামের মো. পলাশ হাওলাদারের ছেলে। ঘটনার পর থেকেই কাঠালিয়া ফায়ার সার্ভিসের একটি উদ্ধারকারী দল উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে এখন পর্যন্ত রিফাতকে উদ্ধার করতে পারেনি।

প্রত্যক্ষদর্শী ও আলিফের বন্ধুরা জানান, শনিবার ইফতারের পর আলিফসহ তাঁর সাত বন্ধু বিষখালী নদীতে নৌভ্রমণে বের হন। শৌলজালিয়া ইউনিয়নের সোনার বাংলা নামক স্থানে ঝড়ের কবলে পড়ে নৌকাটি ডুবে যায়। এ সময় নৌকায় থাকা তাঁর ছয় বন্ধু মো. রাতুল ইসলাম, বাঁধন রায়, ইমরান, রবিউল, তন্ময় মণ্ডল ও ফেরদৌস সাঁতার কেটে তীরে ওঠে। কিন্তু রিফাত সাঁতার কেটে তীরে আসতে পারেননি।

আলিফের স্বজন ও স্থানীয় লোকজন জানান, সোনার বাংলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২০২০ ব্যাচের ৭ বন্ধু মিলে বিকেলে নৌভ্রমণে বিষখালী নদীতে বের হয়ে বেতাগী উপজেলার ফুলতলা চরে ইফতার করেন। ফেরার পথে ঝড়ের কবলে পড়ে নদীর স্রোত ও ঢেউয়ে তাঁদের নৌকা ডুবে যায়। এ সময় ছয় বন্ধু সাঁতার কেটে তীরে উঠতে পারলেও মো. রিফাত বিন আলিফ নিখোঁজ হন।

রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. এমাদুল হক, সহকারী পুলিশ সুপার (রাজাপুর-কাঠালিয়া সার্কেল) মো. মাসুদ রানা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুফল চন্দ্র গোলদার ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মুরাদ আলীর নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল।

কাঠালিয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘গতকাল রাত থেকে নিখোঁজ কলেজছাত্র আলিফকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। বিষখালী নদীতে প্রচণ্ড স্রোত থাকায় রোববার দুপুর পর্যন্ত তাঁকে উদ্ধার করতে পারিনি। উদ্ধারকাজ অব্যাহত রয়েছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন