বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মামলার এজাহার এবং স্থানীয় ব্যক্তিদের সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকালে ছাত্রীর বাবা ও দুপুরে মা কাজ করতে বাড়ির বাইরে যান। এ সুযোগে জহুরুল পান খাওয়ার কথা বলে ছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন।

পরে ছাত্রী তার মা–বাবাকে ঘটনাটি জানায়। বিষয়টি মাতবরদের জানানো হলে রাতে গ্রামে সালিস বৈঠক বসে। কিন্তু জহুরুল সেখানে উপস্থিত হননি।

ছাত্রীর বাবা বলেন, সালিস বৈঠকে কোনো সমাধান না হওয়ায় রাতে তিনি থানায় মামলা করেন। কালাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম মালিক বলেন, আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন