আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, জয়পুরহাটে কিডনি পাচারকারী চক্র রয়েছে। তারা মানুষকে কিডনি বিক্রি করতে প্রলুব্ধ করছে। কেউ চাইলে নিকটাত্মীয়কে কিডনি দিতে পারেন। কিন্তু কিডনি কেনাবেচা নিষিদ্ধ। এখানকার কেউ যাতে কিডনি বিক্রি করতে না পারেন, সে বিষয়ে পুলিশের কড়া নজরদারি থাকতে হবে। এ সময় ‘কিডনি পাচারকারী চক্রের’ মূলোৎপাটনে পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেন তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আজ দুপুরে হেলিকপ্টারে করে জয়পুরহাটে আসেন। এরপর বেলা দুইটার দিকে তিনি ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ পুলিশ সুপার (এসপি) নজমুল হকের নামে করা পুলিশ লাইনস হাইস্কুলের নামফলক এবং পুলিশ লাইনসে নবনির্মিত ‘গৌরবময় স্বাধীনতা’ নামের মুক্তিযুদ্ধ কর্নারের উদ্বোধন করেন। এরপর বিকেল সাড়ে চারটার দিকে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও মাদকবিরোধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন তিনি।

সমাবেশে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নিয়ে কাজ করছি। যাঁরা মাদক ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসছেন, তাঁদের স্বাগত জানাই।’

পদ্মা সেতু প্রসঙ্গে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘পদ্মা সেতু আমাদের সাহসের প্রতীক। এ সেতু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনন্য সৃষ্টি। পদ্মা সেতু নিয়ে দেশে-বিদেশে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অসমসাহসিকতায় পদ্মা সেতু নির্মিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী যা বলেন, তা করে দেখান। পদ্মা সেতু এর বড় প্রমাণ।’

রাজশাহী রেঞ্জ ডিআইজি মো. আবদুল বাতেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়–সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জয়পুরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য সামছুল আলম দুদু, জয়পুরহাটের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. শরীফুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আরিফুর রহমান, পুলিশ সুপার মাছুম আহমেদ ভূঞা প্রমুখ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন