বিজ্ঞাপন

অভিযুক্ত আলমগীরের বাবা মাসুক মিয়া জগন্নাথপুরের পাটলী ইউনিয়নের প্রভাকরপুর গ্রামে থাকেন। তিনি নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার রনচণ্ডী উত্তরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা হলেও প্রভাকরপুর গ্রামে সপরিবার বসবাস করেন।

বিয়ের আশ্বাস দিয়ে অভিযুক্ত তরুণ ওই কিশোরীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন এবং সেই মুহূর্তের ছবি মুঠোফোনে তুলে রাখেন।

পুলিশ, এজাহার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী কিশোরীর সঙ্গে আলমগীর সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এরপর বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তিনি ওই কিশোরীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন এবং সেই মুহূর্তের ছবি মুঠোফোনে তুলে রাখেন। সম্পর্কের বিষয়টি জানাজানি হলে মেয়ের পরিবার আলমগীরকে বিয়ের জন্য চাপ দেয়। আলমগীর মেয়েটির পরিবারের কাছে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করেন। নইলে ফেসবুকে আপত্তিকর ছবি ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন। মেয়েটির পরিবার টাকা না দেওয়ায় সম্প্রতি ফেসবুকে এসব ছবি প্রকাশ করেন তিনি। এ ঘটনায় মেয়ের ভাই বাদী হয়ে আলমগীরকে আসামি করে থানায় শুক্রবার দুপুরে মামলা করেন।

পুলিশ দুপুরেই অভিযান চালিয়ে ইসহাকপুর এলাকা থেকে আলমগীরকে গ্রেপ্তার করে। জগন্নাথপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মির্জা সাফায়াত হোসেন জানান, বিকেলে আদালতের মাধ্যমে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন