পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তিন দিন আগে মাদকাসক্ত নিরাময়কেন্দ্র থেকে বাড়ি ফেরেন ইকবাল হোসেন। গতকাল শনিবার বিকেলে স্ত্রীকে বাবার বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসেন তিনি। আজ রোববার সকাল ৯টায় ফারজানার বাবার বাড়িতে ফোন করে ইকবাল জানান, কে বা কারা ফারজানাকে হত্যা করে ধানখেতে লাশ ফেলে গেছে। পরে ফারজানার বাবার বাড়ির লোকজন ঘটনাস্থলে এসে লাশ শনাক্ত করেন। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

কুমিল্লার কোতোয়ালি মডেল থানার নাজিরাবাজার পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মহিউল ইসলাম বলেন, ফারজানার মাথায় বড় আঘাতের চিহ্ন আছে। তাঁর হাত ওড়না দিয়ে বাঁধা, আর মুখ গামছা দিয়ে বাঁধা ছিল। এটা নিশ্চিত হত্যাকাণ্ড। লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর থেকে ফারজানার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন পলাতক।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন